২০১৮-০৯-২২

বুধবার, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮

একটি আত্মশুদ্ধির বয়ান ও আমরা

OURISLAM24.COM
news-image

মুমিনুল ইসলাম
আলেম ও শিক্ষক

মানবদেহে একটি গোস্তের টুকরা আছে, যেটাকে আমরা কলব, হৃদয় বা আত্মা বলে থাকি।
যে ব্যাক্তি তার আত্মাকে পরিশুদ্ধ করতে পারল সে সফলতা অর্জন করল, আর যে ব্যাক্তি আত্মাকে পরিশুদ্ধ করার ব্যাপারে উদাসিন রইলেএবং আত্মাকে পরিশুদ্ধ করল না, সে যেন ধ্বংসের মুখে পড়ে গেল।

চাকরি আপনাকে খুঁজছে

এই কথাটি আপনার আমার মুখের কথা নয়, স্বয়ং আল্লাহ্‌ তা’য়ালা তার পবিত্র কুরআন মাজিদে বলেছেন, “ যে আত্মশুদ্ধি অর্জন করেছে, সে অবশ্যই সফলকাম হয়েছে আর যে,
আত্মশুদ্ধি অর্জন করতে পারলনা সে অবশ্যই ধ্বংস হয়ে গেল ” – (সূরা আশ শামস,আয়াত-৯)

সুতরাং ,এই আয়াত দ্বারা স্পষ্টভাবে প্রতিয়মান হয়, আমরা যদি সফলতা অর্জন করতে চাই ও আল্লাহ্‌ তা’য়ালার নৈকট্য লাভ করতে চাই তাহলে আমাদের প্রথম কাজ হল আত্মশুদ্ধি অর্জন করা।

কোন এক কবি বলেছিলেন-  “ নষ্ট হৃদয়ে ভ্রষ্ট মানুষ আসল মানুষ নয়,  সুস্থ হৃদয়ে শুদ্ধ মানুষ আসল মানুষ হয় ।”

ব্যর্থতার মাপকাঠি আমাদের সবার দৃষ্টিতে এক নয়, কিন্তু সফলতার মাপকাঠি স্বয়ং স্রষ্টা আমাদের নির্ধারিত করে দিয়েছেন এই একটি আয়াতের মাধ্যমে।  সফলতার চূড়ান্ত মাপকাঠি  অন্তরের পরিশুদ্ধতার সঙ্গে সম্পর্কিত এতে সন্দেহের অবকাশ নেই।

অথচ, বর্তমানে আমাদের অবস্থা এমন হয়েছে যে,আমরা কেউ উচ্চতর শিক্ষা অর্জন করে সফল হতে চাই, কেউ বা ব্যাবসা-বাণিজ্য, চাকরি-বাকরি করে সফল হতে চাই। বড়ই হতাশার কথা আমরা কেউ-ই আল্লাহ্‌ তা’য়ালার দেখানো পথে সফল হতে চাইনা। আর গভির পরিতাপের বিষয় হল আমরা আত্মশুদ্ধি করার জন্য যথাযত চর্চাও করি না।

কওমি মাদরাসা ম্যানেজমেন্ট সফটওয়্যার – বিস্তারিত জানুন 

আমরা ভুল পথে আমাদের জান-মাল, সময় ব্যয় করে ভূল বিষয়ের উপরে চর্চা করে আমাদের জীবনকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছি। এ কারণে  আজ আমারা জীবনের প্রতিটি পদে পদে চরম বিপর্যয়ের সম্মুখীন হচ্ছি।  আমাদের ভেতরে আত্মশুদ্ধি নেই বলেই রাষ্ট্র-সমাজ আজ বর্বরতা,অশ্লীলতা, খোদা দ্রোহীতার শিকার হচ্ছে।

প্রিয় পাঠকগণ! আত্মা হল চালক ,আর বিস্ময়কর এই মানবদেহকে আত্মাই পরিচালিত করে থাকে। নেশাগ্রস্থ মাতাল চালক যেমন একাই ধ্বংস হয় না, গাড়ির আরোহীসহ আরো অনেককে ধ্বংস করে থাকে। ঠিক তেমনিভাবে কল্যাণের জন্য নিবেদিত মানুষগুলো যখন আত্মিক রোগে আক্রান্ত হয়ে যাবে, ঠিক তখনই আমাদের রাষ্ট্র-সমাজ ধ্বংসের মুখে পতিত হবে।

তাই সময় থাকতে সময়ের মূল্য দিন, এভাবে যদি ভূল পথে আমরা আগাতে থাকি আর সফলতা অর্জন করতে চাই তাহলে কোনদিন আমরা সফলতা অর্জন করতে পারবনা।

আমরা সবাই জানি এবং বিশ্বাস করি, মানুষ চিরঞ্জীব নয়। চিরদিন বেঁচে থাকবে না, মৃত্যুর স্বাদ আমাদের সবার গ্রহণ করতে হবে। বলাবাহুল্য, ভুল পথে চলতে চলতে যদি আমাদের মৃত্যু এসে যায়, তবে আমরা কি জবাব দিব আল্লাহ্‌ তা’য়ালার কাছে, কি নিয়ে দাঁড়াবো কিয়ামতের দিনে?

কারণ আল্লাহ্‌ তা’য়ালা তার কালামুল্লাহ শরীফে বলে দিয়েছেন- “ যে ব্যাক্তি আল্লাহ্‌ তা’য়ালার নিকট পরিচ্ছন্ন হৃদয় নিয়ে উপস্থিত হবে (অর্থাৎ আত্মশুদ্ধি অর্জন করে উপস্থিত হবে)
একমাত্র এমন হৃদয়-ই সে দিন কাজে আসবে (কিয়ামতের দিন) ”

সুতরাং,আসুন আমরা আত্মশুদ্ধি অর্জন করার জন্য কোন হক্কানি পীর অথবা কোন আল্লাহ্‌ওয়ালার নিকটে যাই।

যখন আমরা কোন আল্লাহ্‌ওয়ালার কাছে থেকে আত্মাকে পরিশুদ্ধ করার জন্য জোরদার চেষ্টা করব, তখন আমরা অনুধাবন করতে পারব আমাদের আত্মার ভেতরে কত জঞ্জাল পড়ে আছে। কত হাজার হাজার ক্ষত হয়ে আছে।

আত্মার ক্ষতগুলো সংশোধন করা তো কোন সহজ বিষয় নয়, সুদীর্ঘ চর্চার ও সাধনার পরেই আপনার আমার আত্মা সংশোধিত হবে।

আল্লাহ্‌ তা’য়ালা আমাদের সব্বাইকে আত্মশুদ্ধি অর্জন করার তৌফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : শিক্ষক, জহিরুদ্দিন আহমাদ ইসলামিয়া মাদরাসা, ঢাকা।

আপনার ব্যবসাকে সহজ করুন। – বিস্তারিত জানুন

আরএম/