২০১৮-০৮-১৮

সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮

নেক্সট প্রজন্মের হাতে ভিক্ষার ঝুলি দিয়ে যায়েন না প্লিজ

OURISLAM24.COM
news-image

মুফতি মনোয়ার হোসাইন
প্রিন্সিপাল, মাদরাতুল মদীনা বগুড়া
খতিব, গুলশান সেন্ট্রাল মসজিদ

দেখুন যারা এই সোস্যাল মিডিয়া বানিয়েছে তারা এর মাধ্য‌মে কোটি কোটি ডলার উপার্জন করছে, আমার, আপনার কাছ থে‌কেই। ওরা ভিন্ন কোন গ্রহের ? নাহ, যাষ্ট আপনি যে গ্রহে বাস করেন সেই গ্রহেরই। ওদের মস্তকটা ব্যবহার করেছে কিভাবে আপনার মস্তকটা ব্যবহার বা দখল করবে সে জন্য।

ব্যস,হয় আমরা দাসে পরিণত হয়েছি নয়তো আজাইরা কামে লিপ্ত হয়েছি। ওরা নিরাপদ হ‌য়ে‌ছে। অথচ আমা‌দের দ্বারা ওরা কোণঠাসা হবার কথা ছিল।

আপনি যে ফেসবুক ব্যবহার করেন সেটার মোট উপার্জনের ৯৯ ভাগই চ্যরিটিতে দান করে জুকারবার্গ, তার পরিমাণ কত জা‌নেন? থাক জানা দরকার নেই, অত অংক পা‌রি না। ত‌বে এতটুকু জা‌নি যে, আপনার আমার মত মোল্লা‌দের গু‌ষ্ঠিসুদ্ধা কিনা নি‌তে পার‌বো তা‌তে স‌ন্দেহ নেই। দে‌শের তাবৎ লিল্লাহ বো‌র্ডিং শত বছর চালায় দি‌তে পার‌বো তা‌তেও শুবাহ নেই। এগু‌লো ব্রেনের উপার্জন। এরপর দান পাওয়া সে টাকা দিয়ে চার্চ, গীর্জা বা সংস্থাগুলো কী করে?

আপনার আমার মত গরিব মানুষগুলোকে হেল্প কোরে ধীরে ধীরে ইসলাম থেকে বের করে খৃষ্টান বানায়। বিশ্বাস হয় না? উপদ্রব এলাকায় যেয়ে দেখেন।

পার্বত্য অঞ্চলে, উত্তরাঞ্চল আর ময়মনসিং এলাকায় খোঁজ নিয়ে দেখুন। পিলে চমকে যাবে। ত‌বে য‌দি আপনার ইমানী কলজা থে‌কে থা‌কে।

আপনি সময়ের সবটুকু প্রায় ব্যয় করেন মানুষের কল্যাণে। সে জন্য আপনি রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন আই মিন ইসলামি রাজনীতিতে জীবন যৌবন দিয়ে যাচ্ছেন। ভালো কথা, তো আরেকজনকে ল্যাং মারেন ক্যা? তাইলে সেক্যুলার আর আপনার উদ্দেশ্যের মধ্যে পার্থক্য কী?? ক্ষমাত কে‌ন্দ্রিকতা, ঐ ক্ষমতার মূলাই যদি আপনার হৃদয়ে থাকে তবে আপনি আম্লিক বিম্পি থেকে ভালো কিসে?

জানেনই যে আমাদের ইন্টার রি‌লেশন কম। আপনার সময় কই যে এত মানুষকে এসলাহ করবেন? তাও আবার সোস্যাল মিডিয়ায়? ওভাবে হবে না ব্রাদার। এর গোড়ায় গলদ আছে, স্বীকার করেন আর না করেন। দয়া করে চিন্তার মোড় ঘুরান ভাই।

এ বছরে ১৯ লাখ ছেলে মেয়ে এস এসসি পাশ করছে। হিসেব করে দেখা গেছে প্রতিটি দাওরা পাশ ছেলের জন্য প্রায় ৯৯৯জন ছাত্রের দ্বীন শেখাবার দায়ীত্ব পড়ছে। তা‌দের ব্যাপা‌রে আপনার প্লান কি? কয়জন‌কে শিখা‌লেন, দাওয়াত দি‌লেন? আপ‌নি আমা‌দেরই ভেতর ক্যাচাল লাগা‌চ্ছেন।

তো আপনার এত সময় কই যে আপনি এরে ওরে ধরে ধরে ইসলাহ করবেন? তাও আবার আপনার সমগোত্রীয় আলেম উলামা নামক উৎকৃষ্ট শ্রেণীকে!! বিস্ময় লাগে ভাই বিস্ময়।

কুরবানী হবে অনেক জায়গায়। মাদরাসা মাদরাসায় চামড়া কালেকশনের প্রস্তুতি হচ্ছে, চাকুতে শান দেয়া হচ্ছে। সেই মান্ধাতা আমলের পদ্ধতিতে চিঠি নিয়ে আপনি দুয়ারে দুয়ারে। সবাই যখন ঈদের আনন্দ করবে তখন আপনি কালেকশনে ত্রস্ত, ব্যস্ত। আহা… ঐ মিয়া আপনি বা আপনার জাতির একটা ইউনিক আইডিয়া বের হয় না??

যারা দ্বারা এ পদ্ধতি লুপ্ত হবে, আপনার মাদরাসায় টাকা জমা হবে সে ইউনিক পদ্ধতিতে! তা পারেন না। আঠা লাগানোর উস্তাদ আর সেমিনারে তার প্রশিক্ষণ।

যাকাত ম্যানেজমেন্টের একটা ফোরাম আছে। কোটি পতিরা সেখানে উইলিংলি টাকা জমা দেয়। আঞ্জুমানের টাকা রাখার জায়াগা নেই। খুঁজে গিয়ে টাকা দেয়। আপনাদেরও তো এমন আইডিয়া আর কর্মপদ্ধতি বের করার কথা। করেন না কেন? যাকাত ম্যানেজমেন্ট ইভেন্ট করতে পারেন না?

 ব্যবসা নিয়ে দুঃশ্চিন্তা আর নয়  ক্লিক

পারেন, করেন না। মস্তক অন্য জায়গায় খরচ করছেন, নিজেদের গোত্র’র গুষ্ঠি উদ্ধার করতেই তো ওগুলো খরচ হইছে, আইডিয়া বের করবেন কই থেকে?

অনেক হইছে। কাজ করেন,এভাবে দিন যাবে না।প্রজন্মের নিকট ভিক্ষার ঝুলি দিয়ে যায়েন না। আগামি বিশ্বের নেতৃত্ব দেবার আইকিউ তৈরি করুন, রোড ম্যাপ বানান। হিপোক্র্যাট পৃথিবীতে বাঁচতে শেখান, এটা জান্নাত না হযরত,এটা দুনিয়া, যামানা বুজুর্গি চেনে না, বুঝেও না। দুনিয়া যোগ্যতার ভাষা বোঝে, ডু ইউ আন্ডারস্টান্ড??

সোস্যাল মিডিয়ায় বিষ উগ্রে ফেলা আর দংশন করার ক্ষতস্থান না বানিয়ে দয়া করে ইউনিটি তৈরীর মাধ্যম বানান। জাতি উপকৃত হবে। এ দেশের মানুষের মনে কষ্ট, যোগ্য দরদী মানুষ পায়না। রাজনীতি পরেও করা যাবে, চলেন মানুষের পাশে দাঁড়াই-যেমন করে রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। আপনি / আপনারা পারবেন।

এখনও পর্যন্ত আপনারাই এ দেশে সব থেকে সৎ। আপনারা মাদক নেন না, চুরি করেন না, অন্যের অনিষ্ট করেন না। একটু ঐক্য গড়ে মানুষকে বুকে নেন মানুষ আপনাদের মাথায় নেবে ভাই মাথায় নেবে।

আশা করি কথাগুলো নেবেন। নইলে কপালে খারাবি আছে। ভাগ্যের লিখন হচ্ছে আরশে, সব দেখছেন তিনি। কী করার কথা ছিল কী করছেন। মনে থাকে যেন…

মুফতি মনোয়ার হোসাইনের ফেসবুক টাইমলাইন থেকে

-আরআর