২০১৮-০৮-১৮

সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮

অাবারো আল আকসা মসজিদ বন্ধ করলো ইসরায়েল

OURISLAM24.COM
news-image

আবদুল্লাহ তামিম: মুসলমানদের প্রথম কেবলা জেরুসালেমের মসজিদ আল-আকসা বন্ধ করে দিয়েছে ইসরায়েল।

শুক্রবার সন্ধ্যায় মসজিদ গ্রাউন্ডের গেট বন্ধ করে দেয়া হলে স্থানীয় ফিলিস্তিনিরা গেটের বাইরে রাস্তায় মাগরিবের নামাজ মসজিদের আদায় করে।

স্থানীয় গণমাধ্যম ও ইসরাইলি পুলিশের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের প্রভাবশালী গণমাধ্যম আল জাজিরা।

শুক্রবার ইসরায়েলের পুলিশ জানায়, একজন সন্দেহভাজন ফিলিস্তিনি যুবক ছুরি নিয়ে পুলিশের ওপর হামলা করার চেষ্টা করছিল।

পুলিশ ৩০ বছর বয়সী উম আল ফাহম শহরের ফিলিস্তিনি ওই যুবককে গুলি করে হত্যা করেছে। মুসলিমদের কাছে আল আকসা মসজিদ অত্যন্ত সম্মানের।

এখান থেকে শেষ নবি হযরত মুহাম্মদ সা. মিরাজে গমন করেন। তিনি মিরাজে গমনের পূর্বে সকল নবি-রাসূলকে নিয়ে আল-আকসা মসজিদে নামাজের ইমামতি করেন।

আল-আকসা মসজিদ ছাড়াও ডোম অফ রক ও ৭ম শতকের কিছু পবিত্র স্থাপনা মুসলিমদের নিকট অত্যন্ত সম্মান ও আবেগের।

অন্যদিকে ইহুদি ও খৃস্টান ধর্ম মতেও জেরুসালেম ও আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ অত্যন্ত পবিত্র। তারাও এখানে ধর্মীয় অনুভূতি প্রকাশের জন্য নিয়মিত যাতায়াত করেন।

ইসরায়েল বরাবরই আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণ তাদের অধিকার বলে দাবি করে থাকে।

আল-আকসা মুছে ফেলার ছবি মার্কিন রাষ্ট্রদূতের হাতে!

গত মে মাসে জেরুসালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী স্বীকৃতি দিয়ে সেখানে দূতাবাস সরিয়ে এনেছে যুক্তরাষ্ট্র।

এর মধ্য দিয়ে পবিত্র এ শহরটি থেকে মুসলমানদের প্রথম কেবলা আল-আকসা মসজিদকে গুঁড়িয়ে ইহুদিবাদীদের পরিকল্পনা নতুন গতি পেয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

এ অবস্থায় অসহায় বিশ্বের সব দেশের মুসলমানরাই উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। গত ডিসেম্বর থেকে ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে যাচ্ছেন ফিলিস্তিনিরা।

গত ১৪ মে জেরুসালেমে মার্কিন দূতাবাস উদ্বোধনের দিন শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ করতে গিয়ে ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে নিহত হয়েছেন ৬২ ফিলিস্তিনি।

এমন পরিস্থিতির মধ্যেই ইসরাইলে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফ্রিডম্যানের হাতে তুলে দেয়া জেরুসালেমের একটি ছবিকে ঘিরে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

বিমান থেকে তোলা ওই প্রতীকী ছবিতে দেখা গেছে, জেরুসালেম শহরে আল-আকসা মসজিদ ও কুব্বাত আস সাখরার (ডোম অব দ্য রক) মুছে ফেলে সেখানে ইহুদি উপাসনালয় থার্ড টেম্পলকে বসিয়ে দেয়া হয়েছে।

পুরো ছবিটিতে আল-আকসা ও কুব্বাত আস সাখরার অস্তিত্ব একেবারেই বিলীন করে দেয়া হয়েছে। বোঝার উপায় নেই যে কয়েক হাজার বছর ধরে ওই জায়গায় আল-আকসার অস্তিত্ব রয়েছে।

ইসরায়েলের শহর বেনে বারাকে সফরকালে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড ফ্রিডম্যানের হাতে ছবিটি তুলে দেন ইসরায়েলি সংস্থা আচিয়ার এক কর্মকর্তা।

ছবিটি হাতে হাস্যোজ্জ্বল ছিলেন মার্কিন কূটনীতিক। ফলে বোঝার উপায় নেই যে ফ্রিডম্যান ছবির আসল বিষয়টি খেয়াল করেছেন কিনা কিংবা তিনি দেখেও না দেখার ভান করেছেন কিনা।

ব্যবসার হিসাব নিকাশ এখন হাতের মুঠোয়- ক্লিক

ছবিটি বিমান থেকে তোলা হলেও এতে কম্পিউটারে কম্পোজ করে থার্ড টেম্পলের মিথ্যা ছবি বসিয়েছে প্রতিবন্ধী শিশুদের সহায়তায় তৎপর ইহুদিবাদী সংগঠন আচিয়া।

অর্থোডক্স খ্রিস্টানদের সংবাদ সংস্থা কিকার হাশাপাতে এই ছবি কেলেঙ্কারির খবর প্রকাশিত হয়। এর পরই নড়েচড়ে বসে মার্কিন কর্তৃপক্ষ।

মার্কিন দূতাবাস কর্মকর্তারা জানান, তারা আচিয়াকে এ ঘটনায় ক্ষমা প্রার্থনার কথা ঘোষণা করতে আহ্বান জানিয়েছেন। কারণ তাদেরই এক কর্মকর্তা এই বিতর্কিত ছবি রাষ্ট্রদূতের কাছে হস্তান্তর করেছেন।

মার্কিন দূতাবাসের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ফ্রিডম্যান এ ছবির ব্যাপারে সতর্ক ছিলেন না। তিনি এ ঘটনায় খুবই হতাশা প্রকাশ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের নীতি খুবই পরিষ্কার, আমরা হারাম আল শরিফের বর্তমান অবস্থাকে সমর্থন জানাই।

ফ্রিডম্যানকে উদ্দেশ্য করে ইসরায়েলেরই এক আইনপ্রণেতা আহমাদ টিবি বলেন, মানসিকভাবে অসুস্থ এ ব্যক্তি শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চায়। আপনি দূতাবাস স্থানান্তর করে ভালো কাজ করেননি।

সূত্র: আল-আরাবিয়া 

ইমরান খানের প্রথম ১০০ দিনের পরিকল্পনা

-আরআর