২০১৮-০৭-১১

বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

একই মাঠে হেফাজত-জাসদের সমাবেশ; উত্তেজনা

OURISLAM24.COM
news-image

রোকন রাইয়ান

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় আগামী ২৬ জুলাই শানে রেসালাত সম্মেলনের আয়োজন করবে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। বেশ কিছুদিন থেকেই পোস্টার ছাপিয়ে চলছে প্রচার।

এর মধ্যেই বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ একই স্থানে সমাবেশ আহ্বান করেছে। এ নিয়ে নবীনগরে চলছে উত্তপ্ত আলোচনা।

তবে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হেফাজত নেতৃবৃন্দ জানিয়েছেন, ২৬ জুলাই শানে রেসালাত সম্মেলন হোক সব ধরনের মানুষ সেটাই কামনা করছেন।

জানা যায়, হেফাজতের সানে রেসালাত সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ’র আমীর শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

সমাবেশে প্রধান মেহমান হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শাইখুল হাদিস আল্লামা শায়খ সাজিদুর রহমান এবং প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন হেফাজত ইসলাম বাংলাদেশ’র ঢাকা মহানগরের সদস্য ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ৫ আসনের ইসলামী ঐক্যজোট মনোনীত প্রার্থী আলহাজ মাওলানা মেহেদী হাসান।

অন্যদিকে বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ নবীনগর উপজেলা শাখার সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন দলের সভাপতি তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

একই দিন বিকেলে একই স্থানে দুই সমাবেশকে কেন্দ্র করে আলোচনা সমালোচনা চলছে।

হেফাজতের সম্মেলন বিষয়ে মাওলানা মেহেদী হাসান আওয়ার ইসলামকে বলেন, এ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত রোজার ঈদের আগেই চূড়ান্ত হয়। আলোচনা অনুযায়ী ২৬ জুলাই আমরা হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফী’র শিডিউল পাই। সমাবেশের পোস্টার ছাপিয়ে প্রচারণা শুরুর পর জানতে পারি জাসদও একই তারিখে জনসভার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

মাওলানা মেহেদী হাসান জানান, আমিরে হেফাজতের প্রোগ্রাম পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। অনেক কষ্ট করেই আমরা তার ডেট পেয়েছি। এ পোগ্রাম নিয়ে ভিন্ন চিন্তা করার সুযোগ আমাদের নেই।

সমাবেশের অনুমতি বিষয়ে তিনি বলেন, পূর্বের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আমরা আগামীকাল ডিসি অফিসে যাবো। আশা করি কাল বিষয়টির সমাধান হবে এবং তিনি আমাদের পোগ্রামের অনুমোদনই দেবেন।

জাসদের সভায় একজন মন্ত্রীকে অথিতি করা হয়েছে, প্রশাসন তাদের দিকেই ঝুঁকবে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাসদের তো এখানে কর্মী বাহিনী খুবই কম। সমাবেশে লোক হয় কয়েক হাজার। কিন্তু হেফাজত বা অন্যান্য ইসলামী সম্মেলনের চিত্র পুরোই ভিন্ন। কয়েক লাখ লোক সমাগম হয়ে থাকে সাধারণ মাহফিলগুলোতেই।

আর হেফাজত আমির আসবেন এতে এলাকার লোকজনের মধ্যে আগে থেকেই আলাদা আমেজ লক্ষ করা যাচ্ছে। আ’লীগ বিএনপির লোকজনসহ সাধারণ মানুষ এখানে শানে রেসালাত সম্মেলনের পক্ষে।

একই বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিশিষ্ট আলেম, ইসলামী ছাত্র খেলাফতের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আনছারুল হক ইমরান আওয়ার ইসলামকে বলেন, আল্লামা আহমদ শফী এই মুহূর্তে বাংলাদেশের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব। আশা করি, প্রশাসন হেফাজতের শানে রেসালাত সম্মেলনের বিষয়ে পজেটিভ রায়ই দেবে।

তিনি বলেন, আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে সব সময় পাওয়া সম্ভব নয়। তাই জাসদের উচিত অন্য যে কোনো সময়ে প্রোগ্রামের ডেট করা। এতে আশা করি উভয় দলের জন্য ভালো হবে।

হেফাজতের ইসলাম বাংলাদেশ একটি অরাজনৈতিক প্লাটফরম। সংগঠনটি বছর বেশ কয়েকটি শানে রেসালাত সম্মেলন করে থাকে। যার মধ্যে অন্যতম হলো চট্টগ্রামের জমিয়তুল ফালাহ ময়দানের সম্মেলন।

এখানে দুই দিন ব্যাপী ইসলাম সম্মেলন হয়ে থাকে। যাতে অংশ নিতে সারাদেশ থেকে আলেম উলামা ও ধর্মপ্রাণ মানুষ উপস্থিত হন।

আলেমদের আহ্বানে সাড়া দিন; তালেবান ও আফগান সরকারকে ওআইসি

-আরএম