শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮

ভালো ফলেও কলেজ পায়নি ৬২ হাজার শিক্ষার্থী

OURISLAM24.COM
জুন ১০, ২০১৮
news-image

আবদুল্লাহ তামিম:  একাদশ শ্রেণিতে প্রথম ধাপে ভর্তির ফল প্রকাশ করেছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। ফলাফল থেকে জানা গেছে, প্রায় ৬২ হাজার শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে প্রায় ২০ হাজার জিপিএ-৫ ধারী।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ড থেকে এমন তথ্য জানা গেছে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডর কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক মো. হারুন-আর-রশিদ জানান, প্রথম ধাপে মোট ১৩ লাখ ১৯ হাজার ৬৭৫ জন শিক্ষার্থী আবেদন করে।

সেখান থেকে প্রথম তালিকায় ১২ লাখ ৩৮ হাজার ২৫২ জনকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য বিভিন্ন কলেজে মনোনীত করা হয়। ভর্তি সুযোগ না পাওয়া শিক্ষার্থীর মধ্যে ঢাকা বোর্ডে সংখ্যা বেশি।

তিনি বলেন, আবেদনকারীদের মধ্যে মোট ৬ শতাংশ শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে তারা পুনরায় আবেদন করতে পারবে। আগামী ২১ জুন দ্বিতীয় ধাপের আবেদন শুরু হবে। সে ধাপে তারা আবারও পচ্ছন্দের কলেজে আবেদন করে ভর্তি হবে।

ভর্তির সুযোগ না পাওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে কলেজ পরিদর্শক বলেন, ভালো ফলধারীদের রাজধানীর ভালো কলেজে ভর্তির দিকে নজর থাকে। এ কারণে সেসব কলেজে আবেদন বেশি পড়ে।

কিন্তু সেখানে সীমিত আসন থাকায় জিপিএ-৫ ধারী হলেও সবাইকে ভর্তি সুযোগ দেয়া সম্ভব হয় না। এ কারণে অনেকে প্রথম ধাপে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য কোনো কলেজে মনোনীত হয়নি।

হারুন অর রশিদ বলেন, প্রথম তালিকায় ১২ লাখ ৩৮ হাজার ২৫২ জনকে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির জন্য মনোনীত করা হয়েছে। আবেদনকারীদের মধ্যে ৯৪ শতাংশ শিক্ষার্থী প্রথম তালিকায় স্থান পেয়েছে, অন্যরা দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তালিকায় আসবে। সবাই ভর্তির জন্য কলেজ পাবে।

ভর্তি নির্দেশনা

ফল প্রকাশের নির্দেশনায় বলা হয়, নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের ১১ থেকে ১৮ জুনের মধ্যে মোবাইল ব্যাংকিং চার্জ বাদে ১৮৫ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি রকেট, টেলিটক অথবা শিওরক্যাশের মাধ্যমে জমা দিয়ে ভর্তির প্রাথমিক নিশ্চায়ন করতে হবে। ২৭ থেকে ৩০ জুন নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে হবে।

তথ্য মতে, মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় এবার ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ১০৪ শিক্ষার্থী পাস করেছে। আর কলেজে ভর্তি হতে আবেদন করেছে ১৩ লাখ ১৯ হাজার ৬৭৫ জন। এর মধ্যে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ হাজার ৫৯৩ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।

মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ হয়েও এবার ২ লাখ ৫৬ হাজার ৪২৯ শিক্ষার্থী একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হতে আবেদন করেনি; যাদের বেশিরভাগই ঝরে পড়বে বলে বোর্ড কর্মকর্তারা আশঙ্কা করছেন।

গত ১৩ থেকে ২৪ মে রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত অনলাইন ও এসএমএসের মাধ্যমে কলেজে ভর্তি হতে আবেদন করে শিক্ষার্থীরা। কলেজ পরিদর্শক হারুন জানান, কিছু কিছু শিক্ষার্থী তাদের সমস্যার কথা আমাদের জানিয়েছে। তারা ১৯ ও ২০ জুন ফের আবেদন করতে পারবে। আগামী ২১ জুন দ্বিতীয় এবং ২৫ জুন তৃতীয় তালিকা প্রকাশ হবে।

আরো পড়ুন- রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও সরকারের বৈঠক