২০১৮-০৫-১৬

বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮

দলবল দেখে আমরা আদেশ দিই না : প্রধান বিচারপতি

OURISLAM24.COM
news-image

আওয়ার ইসলাম: আজ বুধবার খালেদার জামিন আবেদনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের করা আবেদন খারিজ করে হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ।

রায়ের কয়েক ঘণ্টা পর খালেদা জিয়ার আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী আপিল বিভাগে গিয়ে রায়ের সংক্ষিপ্ত আদেশ চাইলেও আদালত তা নাকচ করে দেন।একপর্যায়ে আদালত বলেন, আমরা দলবল দেখে আদেশ দিই না।

সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী আদালতে বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার জামিনের সংক্ষিপ্ত আদেশ চাচ্ছি। বেল বন্ড দাখিল করার জন্য সংক্ষিপ্ত আদেশ দরকার। আপনাদের আজকের রায় পত্রপত্রিকা ও টিভিতে প্রচার করা হয়েছে।আমাদের দিতে অসুবিধা নেই।

তখন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আপত্তি জানিয়ে বলেন, খালেদা জিয়া তো আরও কয়েকটি মামলায় শোন অ্যারেস্ট আছেন। তা ছাড়া আপিল বিভাগ থেকে এ ধরনের শর্ট অর্ডার দেয়ার নজির নেই।

বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী বলেন, এ ধরনের শর্ট অর্ডার দেয়ার নজির নেই। তখন প্রধান বিচারপতি খালেদার আইনজীবীকে বলেন, আপনার আবেদন রিফিউজ করা হল।

এজে মোহাম্মদ আলী বলেন, হাইকোর্ট বিভাগের রুলসে শর্ট অর্ডার দেয়ার বিধান আছে।

বিচারপতি মোহাম্মদ ইমান আলী বলেন, হাইকোর্টের বিধান কি আমাদের জন্য মানা বাধ্যতামূলক? আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী বলেন, আমি তা বলছি না। আপনারা চাইলে তা দিতে পারেন। প্রধান বিচারপতি আবার বলেন, আপনার আবেদন রিফিউজ করা হল। আইনজীবী এজে মোহাম্মদ আলী বলেন, আমি তো একা এসেছি। দলবল নিয়ে আসিনি।

প্রধান বিচারপতি বলেন, এটি কেমন কথা? দলবল নিয়ে এলেই কি আমরা আদেশ দিয়ে দিই? দলবল দেখে আমরা আদেশ দিই না।

এ পর্যায়ে এক বিচারপতি এজে মোহাম্মদ আলীকে বলেন, প্রধান বিচারপতি যেখানে নাকচ করে দিয়েছেন, সেখানে আবার তর্ক করছেন কেন। শেষে প্রধান বিচারপতি বলেন, আপনার আবেদন আমরা বিবেচনা করতে পারলাম না। বিবেচনা করার সুযোগ নেই।

এদিন আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন, ব্যারিস্টার খন্দকার মাহবুব হোসেন, নওশাদ ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, ব্যারিস্টার নওশাদ জমির, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল প্রমুখ।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম এবং দুদকের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান।

এইচজে

আরো পড়ুনইমাম লাঞ্চনাকারীদের শাস্তি দিতে ব্যর্থ হলে রাজপথে নামবে ৩ লক্ষ ইমাম!