২০১৮-০৪-২২

বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮

রোজা অবস্থায় শরীর থেকে রক্ত বের হলে বা রক্ত দিলে কি রোজা ভাঙ্গবে?

OURISLAM24.COM
news-image

প্রশ্ন:

রোজা অবস্থায় শরীর থেকে রক্ত বের হলে বা সিরিঞ্জ দিয়ে রক্ত বের করলে রোজা ভেঙ্গে যায় কি না? অনেকের দাঁতের সমস্যা থাকে। রোজা অবস্থায় দাঁত দিয়ে রক্ত বের হলে কি রোজা নষ্ট হয়ে যাবে?

উত্তর:

শরীর থেকে রক্ত বের হলে রোজার কোনো ক্ষতি হয় না এবং সিরিঞ্জ দিয়ে রক্ত বের করলেও রোজা ভাঙ্গে না। তবে ইচ্ছা করে এ পরিমাণ রক্ত দেওয়া ঠিক নয়, যার কারণে রোজা রাখার শক্তি হারিয়ে ফেলার আশংকা হয় বা রোজা রাখা কঠিন হয়ে পড়ে। আর দাঁত থেকে রক্ত বের হওয়া রোজা ভঙ্গের কারণ নয়। তবে রোযা অবস্থায় রক্ত বের হলে তা যেন গলায় চলে না যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। কেননা গলায় রক্তের স্বাদ পাওয়া গেলে রোজা ভেঙ্গে যাবে।

দলীলসমূহ:

عن ابن عباس رضي الله عنهما: “أن النبي صلى الله عليه وسلم احتجم وهو محرم، واحتجم وهو صائم”

قال الحافظ ابن حجر رحمه الله في الفتح 4/226: “والحديث صحيح لا مرية فيه، قال ابن عبد البر وغيره: فيه دليل على أن حديث: “أفطر الحاجم والمحجوم” منسوخ، لأنه جاء في بعض طرقه أن ذلك كان في حجة الوداع، وسبق إلى ذلك الشافعي” انتهى كلام الحافظ رحمه الله.
وذهب الإمام أحمد رحمه الله إلى أن الحجامة تفطر، محتجاً بحديث شداد بن أوس رضي الله عنه أن النبي صلى الله عليه وسلم قال: “أفطر الحاجم والمحجوم” رواه أبو داود وابن ماجه والدارمي وغيرهم. وهو حديث صحيح.
ولكن قد ثبت أن النبي صلى الله عليه وسلم رخص بالحجامة للصائم.
قال ابن حزم: صح حديث: “أفطر الحاجم والمحجوم” بلا ريب، ولكن وجدنا من حديث أبي سعيد: ” أرخص النبي صلى الله عليه وسلم في الحجامة للصائم” وإسناده صحيح فوجب الأخذ به لأن الرخصة إنما تكون بعد العزيمة، فدل على نسخ الفطر بالحجامة، سواء كان حاجماً أو محجوماً” راجع فتح الباري: 4/227
وما قاله ابن حزم من نسخ حديث أفطر الحاجم والمحجوم هو قول ابن عبد البر -كما تقدم- وهو الذي سبق إليه الشافعي، ومن أهل العلم من تأول الحديث بأنواع من التأويل مذكورة في شروح الحديث، قال الحافظ: ومن أحسن ما ورد في ذلك ما رواه أبو داود عن رجل من أصحاب النبي صلى الله عليه وسلم قال: “نهى النبي صلى الله عليه وسلم عن الحجامة للصائم، وعن المواصلة، ولم يحرمهما إبقاءً على أصحابه” إسناده صحيح.ا.هـ
والله أعلم.

আরও দেখুন: 

খুলাসাতুল ফাতাওয়া ১/২৫৪;

ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২০৩;

ফাতাওয়া বায্যাযিয়া ৪/৯৮;

আদ্দুররুল মুখতার ২/৩৯৬

 

উত্তর দিয়েছেন: মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব

সম্পাদক, মাসিক আলহেরা (আরবি ম্যাগাজিন)

মুহাদ্দিস, জামিয়া রহমানিয়া সওতুল হেরা, টঙ্গী, গাজীপুর।