বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮

আসরের নামাজ শুরু করার পর মাগরিবের আজান শুরু হয়ে গেছে। এখন কী করবেন?

OURISLAM24.COM
মার্চ ১০, ২০১৮
news-image

প্রশ্ন:

আমি আসরের নামাজ একটু দেরি করে শুরু করেছি। নামাজের মধ্যেই মাগরিবের আজান হয়ে গেছে। জানতে চাই, আমার উক্ত নামাজ কি হয়েছে না পরে কাজা করে নিতে হবে?

الجواب باسم ملهم الصدق والصواب

উত্তর:

যদিও সূর্য অস্ত যাওয়ার সময় নামাজ পড়া নিষিদ্ধ তারপরও ওই দিনের আসরের নামাজের বেলায় বিষয়টি একটু ভিন্ন। ওই দিনের আসরের নামাজ সূর্য ডুবতে থাকা অবস্থায়ও আদায় হয়ে যায়। তবে যদি নামাজ শুরু করার পর প্রথম রাকাতের রুকু করার আগেই সূর্য অস্ত যায় তাহলে এই নামাজ কাজা আদায় হয়েছে বলে গণ্য হবে। কেননা হাদিস শরিফে বর্ণিত হয়েছে,

عَنْ أَبِي هُرَيْرَةَ أَنَّ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ من أدرك ركعة من العصر قبل أن تغرب الشمس فقد أدرك العصر.

যে ব্যক্তি সূর্য অস্ত যাওয়ার আগেই আসরের এক রাকাত নামাজ পেয়ে যায় সে আসর পেয়েছে বলে গণ্য হবে। (মুসনাদে আহমাদ 16/37, তিরমিযী শরিফ 1/80)

তবে কোনো শরয়ী ওজর ছাড়া আসরের নামাজকে এভাবে বিলম্ব করে পড়া ঠিক নয়। হাদিস শরিফে বর্ণিত আছে,

حَدَّثَنَا عَلِيُّ بْنُ حُجْرٍ، حَدَّثَنَا إِسْمَاعِيلُ بْنُ جَعْفَرٍ، عَنِ الْعَلاَءِ بْنِ عَبْدِ الرَّحْمَنِ، أَنَّهُ دَخَلَ عَلَى أَنَسِ بْنِ مَالِكٍ فِي دَارِهِ بِالْبَصْرَةِ حِينَ انْصَرَفَ مِنَ الظُّهْرِ وَدَارُهُ بِجَنْبِ الْمَسْجِدِ فَقَالَ قُومُوا فَصَلُّوا الْعَصْرَ ‏.‏ قَالَ فَقُمْنَا فَصَلَّيْنَا فَلَمَّا انْصَرَفْنَا قَالَ سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم يَقُولُ ‏ “‏ تِلْكَ صَلاَةُ الْمُنَافِقِ يَجْلِسُ يَرْقُبُ الشَّمْسَ حَتَّى إِذَا كَانَتْ بَيْنَ قَرْنَىِ الشَّيْطَانِ قَامَ فَنَقَرَ أَرْبَعًا لاَ يَذْكُرُ اللَّهَ فِيهَا إِلاَّ قَلِيلاً ‏”‏ ‏.‏ قَالَ أَبُو عِيسَى هَذَا حَدِيثٌ حَسَنٌ صَحِيحٌ ‏.‏

আলী ইবনু হুজর (রহঃ) ……. আলা ইবনু আবদির রহমান রা. থেকে বর্ণনা করেন যে, তিনি একদিন যুহরের সালাত আদায় করার পর আনাস রা. এর বসরাস্ত বাড়িতে গেলেন। আনাস রা. এর বাড়ি ছিল মসজিদের পাশেই। তিনি আমদের বললেন উঠ, আসরের সালাত আদায় করে নাও। আলা ইবনু আবদির রহমান বলেন, আমরা উঠে সালাত আদায় করে নিলাম। সালাত শেষে আনাস রা. বললেন, আমি রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে বলতে শুনেছি, এতো মুনাফিকের নামাজ, যে সূর্যের প্রতীক্ষায় বসে থাকে; শেষে শয়তানের দুই শিংয়ের মাঝে যখন তা পৌছে যায় আর আস্তগমনের নিকটবর্তী হয়ে যায় তখন সে উঠে দাঁড়ায় আর চারটি ঠোকর দিয়ে দেয়। এতে সে আল্লাহর স্মরণ খুব কমই করে থাকে। (সহিহ আবু দাউদ ৪২০, মুসলিম, তিরমিজী হাদিস নম্বরঃ ১৬০)

দলীলসমূহ

جاء في (الهداية-1/85، رد المحتار-2/30، كنز الدقائق-1/18، شرح وقاية-1/131) إلا عصر يومه عند الغروب، لأن السبب هو الجزء القائم من الوقت، وإذا كان كذالك فقد أداها كما وجبت، بخلاف غيرها من الصلوات، لأنه وجبت كاملة فلا تتأدى بالناقص.

جاء في (الفتاوى التاتارخانية-2/13, رقم-1517)  وكره صلاة مطلقا مع شروق واستواء وغروب إلا عصر يومه فلا يكره (رد المحتار-2/32) لكن يكره تاخيره إلى ان تتغير الشمس هكذا ذكر فى الأصل، وفى القدورى: وذكر الطحاوى إلى ان مع هذا لو صلى جاز، لأنه صلى فى الوقت.

তথ্যসূত্র:

কিতাবুন নাওয়াজেল-৩/২৬৪

নামায কে মাসায়েল কা এনসাইক্লোপিডিয়া-৩/১১৫

 

والله اعلم بالصواب
উত্তর দিয়েছেন:

মুফতি মুহাম্মাদ শোয়াইব

সম্পাদক, মাসিক আরবি ম্যাগাজিন আলহেরা

সিনিয়র মুহাদ্দিস, জামিয়া রহমানিয়া সওতুল হেরা, টঙ্গী, গাজীপুর।