সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮

‘আমেরিকা-ইসরাইল এবং তাদের অনুসারীরা বর্তমান যুগের ফেরাউনের এজেন্ট’

OURISLAM24.COM
ডিসেম্বর ৮, ২০১৭
news-image

আওয়ার ইসলাম: আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক আল কুদস বা জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার প্রতিবাদে আজ শুক্রবার দেশজুড়ে বিক্ষোভের অংশ হিসেবে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে এক বিক্ষোভ মিছিল পূর্বসমাবেশ আন্দরকিল্লা শাহী মসজিদের উত্তর গেইটে মহানগর সভাপতি মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় যুগ্মমহাসচিব মাওলানা জুনাইদ আল হাবিব।

অন্যান্যদেও মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, হাটহাজারী উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা নাসিরুদ্দিন মুনির, কেন্দ্রীয় শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা মুফতি হারুন ইজহার, দক্ষিণ জেলা সভাপতি মাওলানা সরোয়ার কামাল আজিজী, মহানগর নেতা মাওলানা হাফেজ ফায়সাল, জয়নাল আবেদীন কুতুবী, মাওলানা মনজুরুল কাদের চৌধুরী, মাওলানা জালাল উদ্দিন

মাওলানা আলমগীর, মাওলানা সায়েমুল্লাহ, মাওলানা ইকবাল খলিল, মাওলানা আশরাফ বিন ইয়াকুব, মাওলানা মাওলানা জুনাইদ জওহার, মাওলানা কামরুল ইসলাম কাসেমী, মাওলানা কুতুবুদ্দিন, মাওলানা শহীদুল ইসলাম, মাওলানা হাবিবুর রহমান, মাওলানা মোস্তফা ফায়সাল, মাওলানা শিব্বির আহমদ, মাওলানা জুনাইদ বিন ইয়াহইয়া, মাওলানা নাজমুল হাসান, কারী আবু রায়হান, মাওলানা নাজমুস সাকিব প্রমুখ।

প্রধান অতিথির ভাষণে মাওলানা জুনাইদ আল হাবিব বলেন, চরম বিতর্কিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক জেরুসালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণা দিয়ে মুসলমানদের বিরুদ্ধে ক্রুসেড ঘোষণা করেছে। এই স্বীকৃতির ঘোষণা মুসলমানরা মেনে নিবে না। ট্রাম্প মানবাধিকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। ইসরাইলের স্বার্থে ফিলিস্তিনের নির্যাতিত মুসলিম অধিবাসীদের স্বাধীনতার স্বপ্নকে ভূলুণ্ঠিত করেছেন।

মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, ট্রাম্পের এই ঘোষণা আমেরিকার জনগণের নয়। আমেরিকার রাষ্ট্রীয় নীতিকে উপেক্ষা করে তিনি ব্যক্তিগত কায়েমী উদ্দেশ্যেই এই ঘোষণা দিয়েছেন। এমনকি তিনি জাতিসংঘের ২৪২ ও ৩৩৯ নং রেজুলেশন লংঘন করেছে এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পরামর্শের তোয়াক্কা করেননি। মুসলিম বিশ্বকে চ্যালেঞ্জ করেছে।

তিনি বলেন, মুসলমি উম্মাহ’র বিরুদ্ধে সাম্রাজ্যবাদী আমেরিকা ও বর্ণবাদী ইসরাইল এক হয়েছে। তাদের সাথে মুসলমি দেশগেুলোর কিছু লম্পট ও চরত্রিহীন নেতাও রয়েছে। আমেরিকা ইহুদিবাদী ইসরাইল এবং তাদের অনুসারীরাই হচ্ছে বর্তমান যুগের ফেরাউনের এজেন্ট। আমেরিকার শাসক গোষ্ঠী এখন মধ্যপ্রাচ্যে নতুন যুদ্ধ বাঁধানোর চেষ্টা করছে। যারা যুদ্ধ চায় এবং যুদ্ধই যাদের নীতি, এই ঘোষণার মাধ্যমে তারা নিজেরাই ক্ষতিগ্রস্থ হবে।

বায়তুল মোকাদ্দাসকে ইহুদিবাদী ইসরাইলরে রাজধানী হিসেবে ঘোষণার বিরুদ্ধে মুসলমানরা জান দিয়ে তা প্রতিহত করতে প্রস্তুত রয়েছে।

মাওলানা নাসিরুদ্দিন মুনির বলেন, বিগত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। অথচ এই স্বীকৃতি আমেরিকার জনগণের স্বার্থসংশ্লিষ্ট কোনো বিষয়ই নয়, বরং এটা আমেরিকার নিরাপত্তার জন্য হুমকি ডেকে আনবে।

মুফতি হারুন ইজহার বলেন, তার এই হঠকারী ও পাগলামি সিদ্ধান্ত আমেরিকার সাথে মুসলিম বিশ্বের সম্পর্কে নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। মধ্যপ্রাচ্যের বর্তমান যুদ্ধঘন পরিস্থিতিকে আরো ভয়ানক ও উত্তপ্ত করে তুলবে। আমরা স্পষ্ট বলে দিতে চাই, ট্রাম্পের এই ঘোষণা মুসলমানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার শামিল।

সভাপতির ভাষণে মাওলানা হাফেজ তাজুল ইসলাম বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জেরুজালেমকে ইজরাইলের রাজধানী স্বীকৃতির দেওয়ার সিদ্ধান্তকে আমরা নিন্দা জানাই এবং অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে ফিলিস্তিনিদের ন্যায্য দাবি মেনে নেওয়ার আহবান জানাই।

বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে এক বিক্ষোভ মিছিল বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ কওে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব চত্বওে এসে শেষ হয়।

ট্রাম্পের সিদ্ধান্ত মানি না; বিক্ষোভে সারাদেশ উত্তাল