২০১৭-০৮-১২

বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮

আল্লামা বাবুনগরীর দারস নিলেন বাহরাইনের শায়খ

OURISLAM24.COM
news-image

আওয়ার ইসলাম : দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্যতম বৃহৎ ইসলামী শিক্ষাকেন্দ্র আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী’র সহযোগী পরিচালক ও হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব প্রখ্যাত মুহাদ্দিস আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরীর কাছে গত বৃহস্পতিবার বাদ মাগরীব বাহরাইনের ধর্মমন্ত্রণালয়ের শীর্ষ কর্মকর্তা ও বিশিষ্ট ইসলামী স্কলার ও ইদারাতুল আওকাফ আস-সুন্নিয়ার অন্যতম ঊর্ধ্বতন নীতিনির্ধারক শায়খ ড. হাবীব নামলেতী হাদীসশাস্ত্রের বিখ্যাত তিনটি গ্রন্থ বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ, তিরমিযী শরীফ এবং ফিক্বহে হানাফীর গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ কুদুরীর দারস গ্রহণ করেন।

এর আগে বিকেল ৪টায় শায়খ ড. হাবীব নামলেতী জামিয়া আহলিয়া দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী পরিদর্শনে এসে দারুল হাদীস মিলনায়তনে আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরীর সভাপতিত্বে দাওরায়ে হাদীসের ছাত্রদের উদ্দেশ্যে দ্বীনি শিক্ষার গুরুত্বের উপর প্রায় ৪০ মিনিট গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দেন। এরপর বাদ আছর শায়খ ড. হাবীব নামলেতী জামিয়ার মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী এর সাথে তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাত করে কুশল বিনিময় করেন এবং তাঁর কাছে বুখারী শরীফের দরস গ্রহণ করে ইজাযত প্রাপ্ত হন।

জামিয়া প্রধানের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে বায়তুল কারীম জামে মসজিদে মাগরীবের নামায আদায় করেন। এরপর শায়খ ড. হাবীব নামলেতী স্বীয় সফর সঙ্গীদের নিয়ে জামিয়ার সহযোগী পরিচালক ও হেফাজত মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরীর সাথে সাক্ষাতের জন্য তাঁর কার্যালয়ে গমন করেন। এ সময় আল্লামা বাবুনগরী শায়খ ড. হাবীব নামলেতীকে আন্তরীক অভ্যর্থনা জানিয়ে দারুল উলূম হাটহাজারী সফরের জন্য বিশেষ ধন্যবাদ জানান। সফরকারী মেহমানও তাঁকে আন্তরীকভাবে গ্রহণ ও আতিথেয়তার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশে এত বিশাল ইলমি মারকাজ রয়েছে, এর আগ পর্যন্ত আমার জানা ছিল না। তিনি জামিয়া ক্যাম্পাসে পড়াশোনার সুশৃঙ্খল পরিবেশ এবং ছাত্রদের পোষাক ও চালচলনে সুন্নাতের উপর গুরুত্বদান অবলোকন করে নিজের মুগ্ধতা প্রকাশ করেন।

এরপর ড. হাবীব নামলেতী আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর কাছে সিহাহ সিত্তার কিতাবসমূহের দরসগ্রহণের জন্য তাঁর একান্ত আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন। হেফাজত মহাসচিব সফরকারী মেহমানের আগ্রহের প্রতি সম্মান জানিয়ে সম্মতি দেন। এরপর শায়খ ড. হাবীব নামলেতী একে একে বুখারী শরীফ, মুসলিম শরীফ, তিরমিযী শরীফ ও কুদুরী থেকে কিছু অংশ পড়ে শোনান। আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী মনোযোগ দিয়ে শোনেন এবং পঠিত হাদীসসমূহের উপর আরবী ভাষায় ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করেন। শায়েখ ড. হাবীব নামলেতী বাবুনগরীর অনর্গল আরবী ভাষায় প্রদত্ত জ্ঞানগর্ভ বিশ্লেষণ মুগ্ধ হয়ে মনোযোগের সাথে শুনেন। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাহরাইন প্রবাসী ইমাম ও খতীব এবং শরীয়া স্কলার ডিসকভার ইসলাম বাহরাইন মাওলানা হারুন আযিযী নদভী, শায়খ ড. হাবীব নামলেতী’র পুত্র হামজা, দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার আরবী সাহিত্য বিভাগের অধ্যাপক মাওলানা আনওয়ার শাহ আল-আযহারী, মাসিক মুঈনুল ইসলামের নির্বাহী সম্পাদক মাওলানা মুনির আহমদ, আল-হুদা মহিলা মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা মীর মুহাম্মদ ইদরিস প্রমুখ।

দরসদান শেষে হেফাজত মহাসচিব ড. হাবীব নামলেতীকে ইলমে হাদীসের উপর দরসদানের উপর লিখিত ইজাযত প্রদান করেন। ড. হাবীব নামলেতী এটাকে হেফাজত মহাসচিবের মহানুভবতা আখ্যায়িত করে বিনয়ের সাথে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং আল্লামা বাবুনগরীকে বাহরাইন সফরের আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, ‘আমি অত্যন্ত সম্মানিতবোধ করব, বাহরাইনে আমার ঘরে কয়েকদিন আপনার আতিথেয়তার সুযোগ পেলে’ এরপর ড. হাবীব নামলেতী ও আল্লামা বাবুনগরী ইসলাম ও মুসলিম স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয়ে কিছু সময় পারস্পরিক মতবিনিময়ে ও আলোচনা করেন। বিদায়ের আগে বিদেশী মেহমানকে হেফাজত মহাসচিব কয়েক পদের নাস্তা, মিষ্টি ও ফল দিয়ে আপ্যায়ন করান।

-এজেড