২০১৬-১২-২৯

বৃহস্পতিবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৮

ঢাকায় চতুর্থ ধাপের স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু ১ জানুয়ারি

OURISLAM24.COM
news-image

smartআওয়ার ইসলাম:  চতুর্থ ধাপের স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু হবে পহেলা জানুয়ারি থেকে শুরু হয়ে ১ মার্চ পর্যন্ত। ঢাকার জ্যেষ্ঠ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. শাহ আলম সংবাদ মাধমকে জানিয়েছেন,  ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন  ওয়ার্ডেপর্যায়ক্রমে এই বিতরণ কার্যক্রম চলবে ।

তিনি  বলেন, চতুর্থ ধাপে ঢাকা উত্তরের ৪, ৭, ১১, ১২ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ডে এবং দক্ষিণের ২, ৩, ৪, ৭, ৮, ৯, ১০, ১১, ১২, ১৪, ১৮, ২৯, ৩০ ও ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে বিতরণ চলবে।

গত ৩ অক্টোবর থেকে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণে স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু হয়।

ইসির পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রথমে ঢাকা সিটি করপোরেশন, জেলা-উপজেলা, পৌরসভা ও সবশেষে ইউনিয়ন পর্যায়ে স্মার্টকার্ড বিতরণ করা হবে। ঢাকায় স্মার্টকার্ড বিতরণের পর দেশের অন্যান্য সিটি করপোরেশনগুলোতেও তা বিতরণ করা হবে।

ঢাকায় দুই দফা বিতরণের পর বর্তমানে তৃতীয় দফায় চলা বিতরণ কার্যক্রম বেশকিছু ওয়ার্ডে বৃহস্পতিবার শেষ হচ্ছে বলে জানান ধানমন্ডির থানা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল আলম।

তিনি বলেন, তৃতীয় ধাপে উত্তরের ১৮, ২১ ও ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে এবং দক্ষিণের ১, ৫, ৬, ১৫, ১৬, ১৭, ২২, ২৩, ৩৪, ৩৫, ৩৬ ও ৩৭ নম্বর ওয়ার্ডে বিতরণের কাজ চলছে।

“ইতোমধ্যে সব ওয়ার্ডে গড়ে ৫০ শতাংশের বেশি স্মার্টকার্ড বিতরণ হয়েছে।”

এখনও যারা কার্ড হাতে পান নি তারা পরবর্তীতে সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে সংগ্রহ করতে পারবেন বলে জানান ধানমন্ডি থানার এই নির্বাচন কর্মকর্তা।

এদিকে স্মার্ডকার্ড বিতরণের শুরুর দিকে নানা ধরনের কারিগরী সমস্যা থাকলেও বর্তমানে তা আর নেই বলে জানান নির্বাচন কমিশনের এনআইডি উইয়ের কারিগরী বিশেষজ্ঞ এসএম রকিবুজ্জামান নিয়ন।

তিনি বলেন, এখন ভালোভাবে বিতরণ কাজ চলছে। শুরুতে কিছু কারিগরি সমস্যা থাকলেও এখন তা কেটে গেছে। উপস্থিতির হারও বেড়েছে।

এই স্মার্টকার্ড নেওয়ার সময় পুরনো লেমিনেটেড জাতীয় পরিচয়পত্র ফেরত দিতে হবে। দিতে হবে ১০ আঙুলের ছাপ ও চোখের আইরিশের প্রতিচ্ছবি। দশ ডিজিটের এই কার্ডে সংযুক্ত চিপে নাগরিকদের ৩১টি তথ্য সংরক্ষিত থাকবে।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, দেশের প্রায় ১০ কোটি ভোটারের মধ্যে মোটামুটি ৯ কোটির হাতে লেমিনেটেড এনআইডি রয়েছে। বিভিন্ন নাগরিক সুবিধা পেতে এই জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুলিপি জমা দেওয়ার বাধ্যবাধকতাও রয়েছে।

ডিএস