শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮

যের, যবর, পেশ ও নুকতার আবিষ্কারক কে?

OURISLAM24.COM
অক্টোবর ২০, ২০১৬
news-image

quran copyওয়ালি উল্লাহ সিরাজ

আমরা কুরআন পড়ি। কুরআনের প্রতিটি হরফের উপরই রয়েছে হরকত (যের, যবর, পেশ ও নুকতা)। কুরআন যখন নাজিল হয়েছে তখন কোন হরফের উপরই এই হরকত ছিলো না। এমনকি হযরত উসমান (রা.) যে মুসহাফ (কুরআন সংকলন করেছিলেন) তৈরি করেছেন তাতেও হরফসমূহে নুকতা ও হরকত ছিল না। পরবর্তীতে কে এই মহৎ কাজটি করেছেন-এ নিয়ে ঐতিহাসিকদের মাঝে মতভেদ আছে।

তবে বর্তমান সময়ের বিখ্যাত আলেম, আল্লামা তকী উসমানী (দা.) ‘উলূমুল কুরআন’-এ উল্লেখ করেছেন যে, কুরআনের হরকত কে দিয়েছেন সে সম্পর্কিত সকল বর্ণনা সামনে রাখলে প্রতীয়মান হয় যে, হরকত সর্বপ্রথম হযরত আবুল আসওয়াদ দুয়ালী (রাহ.) আবিষ্কার করেন। কিন্তু হরকতের রূপ এখন যেমন দেখা যায় তেমন ছিল না। তখন ছিল ফোঁটার মতো। যবরের জন্য উপরে এক ফোঁটা দেওয়া হত, যেরের জন্য নিচে এক ফোঁটা আর পেশের জন্য সামনে এক ফোঁটা দেওয়া হত। তানভীনের জন্য দুই ফোঁটা ব্যবহৃত হত। এরপর খলীল বিন আহমদ (রাহ.) হামযাহ ও তাশদীদের বর্তমান রূপটি আবিষ্কার করেন।

এরপর হাজ্জাজ বিন ইউসুফ ইয়াহইয়া বিন ইয়ামার (রাহ.) ও নাসর বিন আসেম (রাহ.)- এর মাধ্যমে কুরআনে কারীমে হরফসমূহে নুকতা লাগানোর ব্যবস্থা করেন। এই সময়ই মূলত নুকতা ও হরকতের পার্থক্যের উদ্দেশ্যে হরকতের বর্তমান রূপটি অবলম্বন করা হয়। সূত্র: আলবুরহান ১/২৫০; উলূমুল কুরআন পৃ. ১৯৫

এআর