শুক্রবার, ১৭ আগস্ট ২০১৮

হিন্দু ধর্মশিক্ষক নিয়োগ দিয়ে সমালোচনায় জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয়

OURISLAM24.COM
সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬
news-image

এম রবিউল্লাহ; আওয়ার ইসলাম

ক্যাথলিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পরিচিত যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয় প্রথমবারের মতো হিন্দু পুরোহিতকে নিয়োগ দিয়েছে। সোমবার ব্রক্ষ্মচারী ব্রজবিহারী শরণ নামের হিন্দু পুরোহিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য উপাসনা এবং ধর্মীয় শিক্ষাদানের দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

আগে থেকেই ক্যাথলিক চার্টার বিদ্রোহী বলে অভিযোগ করা হয় এই বিশ্ববিদ্যালয়কে। হিন্দু পুরোহিত নিয়োগের পর সম্ভবত এর ক্যাথলিক নামটি সমালোচনার মাত্রা আরো বেড়ে যাবে। তবে জর্জ টাউন ‘রাইট টু লাইফ’র সভাপতি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে আমরা সবচেয়ে উদার ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয়। আমাদের অধিকাংশ শিক্ষার্থী ক্যাথলিক নয় এবং তারা এই ধর্মবিশ্বাস লালন করে না।

জর্জ টাউন কর্তৃপক্ষ জানায়, যদিও জর্জ টাউন শিক্ষার্থীদের পরিচালনার জন্য এর আগে একজন ইহুদি শিক্ষক এবং ইমাম নিয়োগ দিয়েছিল। তবে যুক্তরাষ্ট্রে এই প্রথম কোন বিশ্ববিদ্যালয় পূর্ণাঙ্গ হিন্দু পুরোহিত নিয়োগ দিল। যিনি শিক্ষার্থীদের ধর্মগুরু হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এই বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ৩০০ হিন্দু শিক্ষার্থী আছে।

সোমবার ধর্মগুরু হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর ৩৮ বছর বয়সী ব্রজবিহারী শরণ বলেন, অনেক ক্যাথলিক বন্ধু জিজ্ঞাসা করেন, কেন আপনাদের এতোগুলো ঈশ্বর? কেন তারা অনেক অস্ত্র ব্যবহার করে। কেন? কেন? কেন? আমি মনে করি আমরা সবাই আমাদের নিজ নিজ ধর্মের দূত। তাই আমাদের ধর্ম সম্পর্কে সঠিক ধারণা লাভ করতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত ক্যাথলিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে ধর্মনিরপেক্ষতার পরিচয় দিয়ে এই প্রতিষ্ঠানটি সমালোচনার শিকার হয় এবং এর ক্যাথলিক পরিচয় নিয়ে প্রশ্ন উঠে। জর্জ টাউন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষার্থী উইলিয়াম পিটার ব্লেটি ২০১৩ সালে ভ্যাটিকান চার্চে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাথলিক এবং ইহুদি টাইটেল উঠিয়ে দেয়ার জন্য পিটিশন দায়ের করেন। কারণ এটি তার ক্যাথলিক পরিচয় ত্যাগ করেছে।

সূত্র: ওয়াশিংটন পোস্ট ও এনটিভি