All posts by ourislam

বরগুনায় অতিবৃষ্টিতে অনেক গ্রাম প্লাবিত

আওয়ার ইসলাম: টানা বৃষ্টিতে বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা বরগুনা প্লাবিত হয়ে গেছে অনেক গ্রাম। শুক্রবার দিনভর মাঝারি ও ভারি বৃষ্টিপাত হওয়ার ফলে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে।

জেলার প্রধান দুটি নদী পায়রা ও বিষখালীতে অস্বাভাবিক জোয়ারের কারণে একাধিক দুর্বল বেড়িবাঁধ ভেঙে জেলার সদর উপজেলার ডালভাঙ্গা, মোল্লার হোরা, কুমড়াখালী ও তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামসহ মোট সাতটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল টিটু জানান, জোয়ারের চাপে তার ইউনিয়নের মোল্লারহোরা গ্রামের এক অংশ এবং বিকল্প বেড়িবাঁধ ভেঙে গোলবুনিয়া ও পোটকাখালী আশ্রয়ণের একটি অংশ ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এসব এলাকার ছয়-সাত শ পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

জেলার তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দুলাল ফরাজী জানান, অস্বাভাবিক জোয়ারের কারণে তার ইউনিয়নের তেঁতুলবাড়িয়া এলাকার বেড়িবাঁধ ভেঙে একাধিক গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে শতাধিক দরিদ্র পরিবার।

চিকিৎসার জন্য শনিবার লন্ডন যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি

আওয়ার ইসলাম: চোখের চিকিৎসা ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ২১ অক্টোবর লন্ডন যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের তিনি লন্ডন যাবে।

রাষ্ট্রপতি সেখানে ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত অবস্থান করবেন বলে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন।

তিনি বলেন, লন্ডনের মুরফিল্ড আই হসপিটালে চোখের চিকিৎসা এবং বুপা ক্রমওয়েল হসপিটালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাবেন প্রেসিডেন্ট। আগামী ২৯ অক্টোবর তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

৭৪ বছর বয়সী আবদুল হামিদ দীর্ঘদিন ধরে গ্লুকোমায় ভুগছেন। এর আগে গত এপ্রিলেও তিনি চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গিয়েছিলেন।

এরদোগানের সঙ্গে আবদুল হামিদের বৈঠক; যে কথা হলো দুজনের

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে মাওলানা আবু তাহের রাহমানী

রাকিব মুহাম্মদ
বিশেষ প্রতিবেদক

বহুরৈখিক প্রতিভাধর আলেম রাজধানী বাসাবোর মাদরাসাতুস সুফফা আল-ইসলামিয়া’র প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল মাওলানা আবু তাহের রাহমানী (৫৩) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন আছেন।

মঙ্গলবার বুকে ব্যথা অনুভব করলে রাজধানীর শাহবাগের ইব্রাহিম কার্ডিয়াক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

তিনি হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সাইদুর রহমানের অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে আওয়ার ইসলামকে নিশ্চিত করেছেন তার ভাই মাওলানা জুবায়ের আহমদ রাহমানী।

তিনি জানান, বর্তমানে মাওলানা আবু তাহের রাহমানীর অবস্থা উন্নতির দিকে। তিনি সবার কাছে তার সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন।

মাওলানা আবু তাহের রাহমানী মাদরাসাতুস সুফফার পাশাপাশি রামপুরার জামিয়া কারিমিয়ায় বুখারি শরিফের পাঠদান করছেন।

এর তিনি আগে মাদরাসাতুল মদিনা কামরাঙ্গীরচর এবং রামপুরার মাদরাসাতুল কাউসারে শিক্ষকতা করেন। নারায়ণগঞ্জের দেওভোগ মাদরাসায় বুখারী শরিফের পাঠদান করেছেন।

শিক্ষকতা ও জুমার ইমামতিসহ গ্রন্থ রচনায়ও রয়েছে তার সরব প্রদার্পণ। লিখেছেন ‘তোহফাতুল মুসলিমিন, শরিয়তের দৃষ্টিতে পারিবারিক জীবন এবং দীন ও শরিায়তসহ একাধিক বই।

মাওলানা আবু তাহের রহমানী লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। মেধাবী এ আলেম পড়াশোনা করেছেন ঢাকার কামরাঙ্গির চরের জামিয়া নুরিয়ায়।

৬ বছর পর ঢাকায় আসছেন মুফতি সাঈদ আহমদ পালনপুরী

হাওলাদার জহিরুল ইসলাম
বিশেষ প্রতিবেদক

উপমহাদেশের বিখ্যাত দীনি বিদ্যপীঠ ভারতের দারুল উলুম দেওবন্দের সদরুল মুদার্রিসীন ও শায়খুল হাদিস হজরত আল্লামা মুফতি সাঈদ আহমদ পালনপুরী একদিনের সংক্ষিপ্ত সফরে আগামী ২৭ অক্টোবর ঢাকায় আসছেন৷

২০১১ সালের পর বাংলাদেশে এটিই তার প্রথম সফর।

বাংলাদেশে আল্লামা পালপুরীর বিশেষ শাগরেদ ও প্রখ্যাত ফিকাহবিদ মাওলানা ইয়াহইয়া’র সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি এই প্রতিবেদক বলেন, রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকায় ‘মাসনা মাদরাসা ঢাকা’ উদ্বোধন উপলক্ষে আল্লামা পালনপুরী বাংলাদেশে আসবেন।

কেবল একটি মাদরাসা উদ্বোধন উপলক্ষ্যে পালনপুরীর জরুরি সফর বিষয়টি খোলাসা করতে গিয়ে মাওলানা ইয়াহিয়া বলেন, মাদরাসাটি একটি ব্যতিক্রম উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠিত হতে যাচ্ছে৷ গতানুগতিক ধারার বিপরীতে ফিকহ ও উসূলে ফিকহের ওপর একঝাঁক মেধাবী তরুণকে গভীর পাণ্ডিত্যের অধিকারী হিসেবে গড়ে তুলতেই এই মাদরাসার সূচনা হচ্ছে৷ এটা হজরত পালপনপুরীর একান্ত ইচ্ছে ও পরামর্শেই হচ্ছে৷

অনুষ্ঠান সূচি সম্পর্কে মাওলানা ইয়াহইয়া জানান, আল্লামা পালনপুরী ২৬ অক্টোবর দুপুরে এয়ার ইন্ডিয়ার একটি ফ্লাইটে দিল্লি থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে বিকেল সাড়ে চারাটায় ঢাকার শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে অবতরণ করবেন৷ রাত ও পর দিন পুরো সময়টাতে মাসনা মাদরাসা ঢাকা’তেই অবস্থান করবেন৷

তিনি জানান, অন্য কোনো মাদরাসায় তার কোনো প্রোগ্রাম রাখা হয়নি৷ তবে জোহরের আগে মাদরাসার দায়িত্বশীলদের সাথে মতবিনিময় সভা হবে৷ আর বাদ জোহর উলামায়ে কেরামের সাথে বিশেষ কোনো মতবিনিময় সভা হবে কিনা তা এখনো নিশ্চিত নই৷

তিনি আরো জানান, বাদ আসর গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা রাখবেন মারকাযুদ্ দাওয়াহ’র পরিচালক মাওলানা আবদুল মালেক৷ বাদ মাগরিব আলোচনা পেশ করবেন ফরিদাবাদ মাদরাসার মুহাদ্দিস মাওলানা জিকরুল্লাহ খান৷

এরপর শায়খ পালনপুরী নসীহত পেশ করবেন ও দোয়ার মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ করবেন৷ পরদিন (২৮ অক্টোবর) সকাল দশটার ফ্লাইটে তিনি ঢাকা ত্যাগ করবেন৷

উল্লেখ্য ২০১১ সালের পর এটিই পালনপুরীর প্রথম সফর৷ ফলে বাংলাদেশে তার ভক্ত অনুরাগী ও শাগরেদদের মাঝে উক্ত অনুষ্ঠান ঘিরে ব্যাপক উদ্দীপনা দেখা যাচ্ছে৷ অনুষ্ঠানে উলামা-তলাবার পাশাপাশি সাধারণ মুসল্লীগণও ব্যাপকভাবে অংশ নিবেন বলে আয়োজক কমিটি আশা প্রকাশ করছে৷

প্রয়োজনে আবার মুক্তাঙ্গণে অবস্থান করবো!

‘প্রধান বিচারপতির আর কাজে ফেরার সুযোগ নেই’

আওয়ার ইসলাম: বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা তাঁর কাজে আর ফিরতে পারবেন না বলে মনে করেন আইন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আব্দুল মতিন খসরু।

মি: খসরু বলেন, “বিচারক যদি কখনও বিতর্কিত হন, দুর্নীতির অভিযোগ থাকে, ওনার সাথে সাথে পদত্যাগ করতে হয়। অন্যান্য বিচারপতিদের কাছে মাননীয় বিচারপতি এস কে সিনহা বলেছেন উনি রিজাইন করবেন।

রিজাইন করার পরিবর্তে উনি একটা স্টেটমেন্ট দিয়ে চলে গেলেন … আবার এসে চেয়ারে বসতে চাচ্ছেন। অন্য বিচারপতিরা বলেছেন, আমরা ওনার সাথে আর বসবো না। ওনার আসার আর সুযোগ নাই। আমার মনে হয় এটা সুদূরপরাহত”।

বৃহস্পতিবার রাতে চ্যানেল আই টেলিভিশনে প্রচারিত ‘বিবিসি প্রবাহ’ অনুষ্ঠানে মি: খসরু এসব কথা বলেন।
তবে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার আগে এক লিখিত বিবৃতিতে প্রধান বিচারপতি বলেছিলেন, বিচার বিভাগ যাতে ‘কলুষিত’ না হয় সেজন্য তিনি ‘সাময়িকভাবে’ দেশ ছেড়ে যাচ্ছেন।

প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতির’ গুরুতর অভিযোগ তোলেন এই আওয়ামী লীগ নেতা।
প্রবাহ টিভি অনুষ্ঠানে মি: খসরু দাবি করেন মি: সিনহার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে মোটা অংকের টাকা লেনদেন হয়েছে।

মি: খসরু বলেন, “কোটি কোটি, চার কোটি-পাঁচ কোটি পে-অর্ডার … ব্যাংকে পাঁচ কোটি দশ কোটি টাকার লেনদেন – এটা কোত্থেকে হলো?”

প্রধান বিচারপতি অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার পর গত ১৪ই অক্টোবর সুপ্রিম কোর্টের এক বিবৃতিতে জানানো হয় যে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে ১১টি সুনির্দিষ্ট অভিযোগ সম্বলিত কিছু তথ্য রয়েছে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের কাছে, যা তিনি হস্তান্তর করেছেন আপিল বিভাগের অন্য পাঁচজন বিচারপতির কাছে।

‘ইসলামের আদর্শের ভিত্তিতে একটি কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় জনমত এখন তৈরি সময়ের দাবী’

হাসান আল মাহমুদ
বিশেষ প্রতিবেদক

উপমহাদেশের প্রাচীনতম সংগঠন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র সমাজ এর ঢাকা মহানগর কর্মী সম্মেলন গত ১৯ অক্টোবর ২০১৭, বৃহস্পতিবার রাজধানীর ফটো জার্নালিস্ট মিলনায়োতনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিকাল তিনটা থেকে শুরু হওয়া এই কর্মী সম্মেলনে মহানগর সভাপতি আতিকুর রহমানের সভাপতিত্বে ও মহানগর সাধারণ সম্পাদক বি. এম আমির জিহাদীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ছাত্র সমাজের সাবেক সভাপতি ডক্টর আ ফ ম খালিদ হোসেন ও প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় সভাপিত আব্দুল্লাহ আল মাসউদ খান।

আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি মাওলানা আব্দুল মাজেদ আতহারী, মাওলানা আবু তাহের খান, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, মাওলানা মুসা বিন ইজহার, মওলানা হাফেজ ছালামতুল্লাহ, মাওলানা ইয়াছিন হাবিব, হাফেজ নজরুল ইসলাম, হাফেজ আজিজুল হক, মাওলনা রাশেদুল ইসলাম, মাওলানা মোসাদ্দেকুল মাওলা, মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, মাওলানা বশিরুল্লাহ মাহম্মুদী, মাওলানা আনোয়ারুল কবির।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডক্টর আ.ফ.ম খালিদ হোসেন বলেন, ইসলামের কালজীয় আদর্শের ভিত্তিতে একটি কল্যাণরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য জনমত তৈরি করা এখন সময়ের দাবী। যে কোন আদর্শ প্রতিষ্ঠার জন্য আদর্শিক কর্মীবাহিনীর প্রয়োজন অনস্বীকার্য। ইসলামী ছাত্রসমাজ সেই কর্মীবাহিনী তৈরীর কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, ছাত্রত্ব বিসর্জন দিয়ে ছাত্রদের রাজনীতির দাবাগুটি বা পেশী শক্তির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারকে আমরা ঘৃণা করি। ছাত্রগণ আগামী দিনের ভবিষ্যৎ, তাদের মেধা ও মননশীলতাকে লালন করে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

সম্মেলনে প্রধান বক্তা কেন্দ্রীয় সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মাসউদ খান বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ভিক্তিক গণমুখী ইসলামী শিক্ষাব্যবস্থা চালু করা, স্বতন্ত্র ইসলামী আরবী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা ও কওমী মাদ্রাসা সনদের সরকারী স্বীকৃতি আদায়ের আন্দোলনসহ ন্যায্য সংগ্রামে ইসলামী ছাত্রসমাজের সংগ্রামী অবদান রয়েছে । ইসলামী ছাত্রসমাজ শুধু একটি নাম নয়; একটি ইতিহাস।

সম্মেলনে অন্যান্য বক্তাগণ তাদের বক্তব্যে ইসলামী ছাত্র সমাজ এর গৌরবময় অতীতের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে ‘ইসলামী ছাত্র সমাজ’ এর হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনতে নতুন প্রজন্মের ছাত্রদের কাছে উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন।

মদিনা শহরে ৪০০ রহস্যময় বস্তুর সন্ধান

আওয়ার ইসলাম: যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্বের অধ্যাপক ডেভিড কেনেডি সৌদি আরবের মদিনা শহরে ৪০০ রহস্যময় বস্তুর সন্ধান পেয়েছেন। যা দেখতে দেয়াল বা দরজাসদৃশ।

এগুলো মদিনা শহর থেকে উত্তরে হারাত খায়বার অঞ্চলে রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে এগুলো ৯ হাজার বছর আগের কোনো নিদর্শন। এগুলোর নাম দেয়া হয়েছে গেটস।

গুগল আর্থের ম্যাপিং সেবা ব্যবহার করে ওই দেয়ালগুলো খুঁজে পেয়েছেন ডেভিড কেনেডি।

লন্ডনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেন্ডেন্টের খবরে বলা হয়, এর আগেও মধ্যপ্রাচ্যের সিরিয়া ও ইয়েমেনের বিভিন্ন অঞ্চলে এই ধরনের রহস্যময় দেয়াল পাওয়া গেছে। সেগুলো স্যাটেলাইট থেকে দেখলে দরজার আকৃতির মনে হয়।

তবে কী উদ্দেশে ওই দেয়ালগুলো তৈরি করা হয়েছিল তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। আরবের স্থানীয় বেদুইনদের কাছে সেগুলো ‘প্রাচীন মানুষের কাজ’ নামে পরিচিত।

এ বিষয়ে অধ্যাপক কেনেডি জানান, সৌদি আরবে খুঁজে পাওয়া নতুন এই দেয়ালগুলো আগেরগুলোর থেকে অনেকটাই আলাদা। এগুলোর আকৃতি ১৩ মিটার থেকে শুরু করে এক কিলোমিটার পর্যন্ত। সেগুলোর কয়েকটা আবার আগ্নেয়গিরির চূড়ায় অবস্থিত।

কেনেডি আরো বলেন, ‘দরজা’ ছাড়াও কিছু রহস্যময় আকৃতির দেয়াল পাওয়া গেছে। স্থানীয়ভাবে সেগুলো ‘কাইটস’ বা ঘুড়ি নামে পরিচিত।

ধারণা করা হচ্ছে, সেগুলো বিভিন্ন প্রাণী ধরার ফাঁদ হিসেবে ব্যবহার করা হতো। রহস্যময় এই স্থাপত্যগুলো ‘নিওলিথিক’ যুগের বলেই ইশারা করে।

এমন একটি বাড়ি যদি আপনাকে উপহার দেয়া হয়!

আরিফ আজাদ

ধরুন আপনাকে একটি নির্জন দ্বীপে রেখে আসা হলো। এটি এমন একটি দ্বীপ যেখানে এর আগে আপনি আর কখনোই আসেন নি। দ্বীপের পরিবেশ, আবহাওয়া সবকিছুই নতুন। আপনার পরিচিত কোনকিছুই যেন এখানে নেই।

কিছুদূর হাঁটতে গিয়ে ধরুন একটি অনিন্দ্য সুন্দর বাড়ি দেখতে পেলেন। কারুকার্যময় এই বাড়িটি দেখে আপনি যেন নিজের চোখকেই বিশ্বাস করতে পারছেন না। কে বানালো এটি? এতো সুন্দর! এতো মনোরম! এতো মনোহর!

এই বাড়িতে যে পাথর ব্যবহার করা হয়েছে তা আপনি জীবনেও চোখে দেখেন নি।

এটি মণি-মুক্তোর নয়, এ পাথর যেন তারচেয়েও আরো অনেক অনেক অনেক বেশি কিছু।

এই বাড়ির যে ডিজাইন, এই ডিজাইন কোন মানুষ করতে পারে বলে আপনার মনেই হচ্ছেনা। অসম্ভব।
আপনি যখন চোখ কচলাতে কচলাতে স্বপ্নে আছেন না বাস্তবে সে ব্যাপারে নিশ্চিত হতে চাইছেন, ঠিক তখনি আপনার হাতে একখানা কাগজ চলে এলো।

সেই কাগজে বাড়ির মালিক হিসেবে বিশাল বিশাল অক্ষরে আপনার নাম লেখা।
আপনি আরো একবার শক খেলেন। কী হচ্ছে এসব?

কাগজটি খুললেন। খুঁজতে লাগলেন কী এর রহস্য…
একটা পর্যায়ে গিয়ে দেখলেন, এই বাড়িটা আপনাকে উপহার করা হয়েছে।

আপনি আপনার দৈনিক সময় থেকে ২০ মিনিট এমন কিছু কাজে ব্যয় করতেন, যার জন্য আজকে আপনাকে এই অনিন্দ্য সুন্দর বাড়িটি উপহার হিসেবে দেওয়া হয়েছে।

আপনি অবাক হলেন। দৈনিক মাত্র ২০ মিনিট ব্যয় করাতেই এই উপহার!!!!!

ভাবছেন গল্পটি অবাস্তব? ঠিক ধরেছেন। গল্পটি আপাতঃ অবাস্তব। তবে, এই অবাস্তব এমন ক্যাটাগরির অবাস্তব, যেটাকে চাইলেই বাস্তবে রূপ দেওয়া যায়।

দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়ি না আমরা? এই পাঁচ ওয়াক্ত নামাজে ফরজ নামাজ ছাড়া সুন্নত (সুন্নতে মুয়াক্কাদা) আছে কতো রাকা’ত?

ফজর নামাজের আগে দুই রাকাত, যোহরের আগে চার রাকাত, পরে দুই রাকাত, মাগরিবের পরে দুই রাকাত, এশার পরে দুই রাকাত। মোট হলো বারো রাকাত। এই বারো রাকাত সুন্নত সালাত আদায় করতে আমাদের কতো সময় লাগে? সর্বোচ্চ বিশ মিনিট যায়।

আপনি কী জানেন এই বারো রাকাত সুন্নত সালাত ঠিকমতো আদায় করলে জান্নাতে আল্লাহ তা’লা আপনার জন্যও ঠিক উপরে বর্ণিত, কিংবা তারচেয়েও অনেক অনেক বেশি মনোরম বাড়ি নির্মাণ করবেন?

“হযরত উম্মে হাবীবা (রাঃ) থেকে বর্ণিত,- তিনি বলেন, ‘রাসুল (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি ফরজ নামাজ গুলো ব্যতিত শুধু মাত্র আল্লাহর উদ্দেশ্যে দৈনিক বারো রাকাত সুন্নত আদায় করে, আল্লাহ তা’য়ালা তার জন্য জান্নাতে একটি ঘর নির্মাণ করেন।”

( রিয়াদুস সালেহিন ১০৯৭, মাওয়ারিদুজ জামআন ৬১৪, নাসাঈ ১৪৮০, মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল ২৬৮১৭, ইবনে মাজাহ ১১৪১ )

জান্নাতে একটি ঘর! ভাবতে পারেন? জান্নাতের বর্ণনায় পাওয়া যায়, এটি এমন যা কোন চোখ কোনদিন দেখেনি, কোন হাত কোনদিন স্পর্শ করেনি।

সেই ঘরের কারুকার্যতা, ডিজাইন, পাথরকে দুনিয়ার কোন রত্নের সাথে তুলনা করবেন? সম্ভব কী?

অথচ, জান্নাতে এই ঘরটি উপহার পাওয়ার দূর্দান্ত, দূর্লোভ এই সুযোগটি পেতে আপনাকে কী করতে হবে জানেন? কেবল ফরজ নামাজের আগে-পরের সুন্নতগুলো ঠিকমতো আদায় করতে হবে।

দৈনিক চব্বিশ ঘন্টা সময় থেকে বিনিয়োগ করতে হবে মাত্র বিশ মিনিট।

এর বিনিময়ে জান্নাতে বাড়ি। আহা…!!

শাহপরীর দ্বীপে নৌকা ডুবির ঘটনায় ইউপি মেম্বারের সাজা

মুহাম্মদ জুবাইর
টেকনাফ

টেকনাফের শাহপরীরদ্বীপে রোহিঙ্গাদের নৌকাডুবির ঘটনায় স্থানীয় ইউপি মেম্বার নুরুল আমিনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার রাতে টেকনাফ থানার ওসি তদন্ত শেখ আশরাফুজ্জামানের নেতৃত্বে শাহপরীরদ্বীপ পশ্চিম পাড়া এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়।

পরে রাতেই আটক ইউপি মেম্বারকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ৩ মাসের সাজা প্রদান করে মঙ্গলবার সকালে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন সিদ্দিক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন।

আটক ইউপি মেম্বার টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের ৭ নং ইউপি মেম্বার ও শাহপরীরদ্বীপ পশ্চিম পাড়া এলাকার বাসিন্দা।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাইন উদ্দিন খান সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, টেকনাফের কোন নৌকা বা ট্রলারকে মিয়ানমারে গিয়ে রোহিঙ্গাদের নিয়ে আসতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়া হলেও উক্ত ইউপি মেম্বারের এলাকা থেকে বারবার নৌকা গিয়ে রোহিঙ্গাদের আনতে গিয়ে সাগরে ডুবে এপর্যন্ত দেড় শতাধিক রোহিঙ্গার মৃত্যু হয়েছে।

এব্যাপারে ইউপি মেম্বার নুরুল আমিন প্রশাসনকে সহায়তা না করে দালালদের সহায়তা করে যাচ্ছিলেন বলে জানান তিনি।

নিজের বাসা থেকে নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ

আওয়ার ইসলাম: নিজের বাসা থেকে শেরপুরের নকলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহাবুব আলী চৌধুরী মনিরের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আজ শুক্রবার সকাল ৯টার দিকে থানার পাশের ফল পট্টি মোড়ের নিজ বাসার দরজা ভেঙে এই বিএনপি নেতার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নকলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান আব্দুল হালিম সিদ্দিকী জানান, ‘আমরা খবর পেয়ে এসেছি। মাহবুব আলী চৌধুরীর ঝুলন্ত লাশ পেয়েছি নিজ শয়নকক্ষে। বাড়ির লোকজন সকালে ওনার কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায়।’

ওসি আরো জানান, ‘সম্ভবত এটা আত্মহত্যার ঘটনা। তবে ময়নাতদন্তের পরই পুরোপুরি তা নিশ্চিত হওয়া যাবে।’

মাহবুব আলী চৌধুরী মনির এবার প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি পরপর কয়েকবার উপজেলার চরঅষ্টধর ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলেন। তার ভাই মরহুম জাহেদ আলী চৌধুরী জাতীয় সংসদের হুইপ ও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন।