All posts by ourislam2

নারীদের ফসলের মাঠে যেতে মানা: ইমামসহ ৩ জন রিমান্ডে

আওয়ার ইসলাম : কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ফসলের মাঠে নারীদের যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির অপরাধে এক মামলায় ৬ জনকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে মসজিদের ইমামসহ ৩ জনকে এক দিন করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। বাকিদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এ ঘটনায় গতকাল মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টায় কুমারখালী থানার উপ-পরিদর্শক শেখ রাজিব আল রশিদ বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলাটি ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে করা। মামলায় ১৯ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। অজ্ঞাত আসামি আরও ১০-১৫ জন।

‘ফসলের ক্ষতি’ ও ‘অসামাজিক কার্যকলাপ’-এর হাত বন্ধের উদ্দেশ্যে কল্যাণপুর গ্রামের নারীদের মাঠে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। গত শুক্রবার মাইকেেএমন ঘোষণা দেওয়া হয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমারখালী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বিপ্লব কান্তি সরদার বলেন, মঙ্গলবার রাতে কল্যাণপুর ও আশপাশের এলাকায় অভিযান চালিয়ে ছয়জনকে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে এজাহারভুক্ত চারজন হলেন কল্যাণপুর জামে মসজিদের পেশ ইমাম আবু মুছা (৩৬), মসজিদ কমিটির সভাপতি আলতাব হোসেন (৪০), সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান (৩৮) ও আবুল। সন্দেহভাজন আসামির তালিকায় রয়েছে আনসার আলী (৫০) ও দাউদ শেখ (৩৮)।

৬ জনকেই আজ বুধবার দুপুরে কুষ্টিয়া জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে (কুমারখালী আমলি আদালত) নেওয়া হয়। রিমান্ডের আবেদন করা হলে আদালত আবু মুছা, আলতাব ও মতিয়ার রহমানের এক দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বাকি ৩ জনকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পুলিশ সুপার (এসপি) এস এম মেহেদী হাসান বলেন, ঘটনাটি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। বাকি আসামিদের ধরতে সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশ কর্মকর্তাদের জোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আরএম

‘মুফতী আমিনী রহ. ছিলেন ইসলামপ্রিয় জনতার সার্বজনীন অভিভাবক’

আওয়ার ইসলাম :  খেলাফতে ইসলামী বাংলাদেশের আমীর ও ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী বলেছেন, মুফতী আমিনী রহ. ছিলেন একজন বিশাল মহীরুহ, বাংলাদেশের ইসলামপ্রিয় জনতার সার্বজনীন অভিভাবক।ইসলামের দূর্যোগে কিভাবে আন্দোলন করতে হয়, তা তিনি আমাদেরকে শিখিয়ে দিয়ে গেছেন।

আজ বুধবার দুপুর ২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ইসলামী যুব খেলাফত বাংলাদেশের উদ্যোগে আল্লামা মুফতী ফজলুল হক আমিনী রহ. এর ‘জীবন ও কর্ম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

হাসানাত আমিনী বলেন, যখনই ইসলামের উপর বাতিল শক্তি কোন আঘাত হেনেছে। মুফতী আমিনী রহ. কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে সেই আঘাত মোকাবেলা করেছেন। এক আল্লাহ ছাড়া কাউকে তিনি পরোয়া করতেন না। তাঁর অবর্তমানে রাজনীতির ময়দানে এখন একটি আদর্শিক শূন্যতা বিরাজ করছে। এই শূন্যতা আগামী কয়েক যুগেই হয়ত পূরণ হবে না। ।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতী সাখাওয়াত হোসাইন রাজীর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী জেনারেল মুফতী জুনায়েদ গুলজারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতী ফয়জুল্লাহ, ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা আবু তাহের জেহাদী, যুগ্ম মহাসচিব মুফতী তৈয়্যব হোসাইন, মাওলানা ফজলুর রহমান, মাওলানা আবুল কাশেম, মাওলানা আহলুল্লাহ ওয়াছেল।

জেরুসালেমকে ইসরাইরের রাজধানী ঘোষণা করায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে তিনি বলেন, ক্ষমতায় নেশায় ট্রাম্প উন্মাদ হয়ে গেছে। দেড়শো কোটি মুসলমানের প্রাণের স্পন্দন জেরুসালেমকে ইসরা্লইর রাজধানী ঘোষণা দিয়ে তিনি জাতিসংঘ সনদ ও আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করেছেন। অবিলম্বে তার ভুল সিদ্ধান্ত পরিহার করতে হবে। তা না হলে সারা বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্র কোণঠাসা হয়ে পড়বে।

সভায় অন্যন্যদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন, ইসলামী ঐক্যজোটের সহকারী মহাসচিব মাওলানা ফারুক আহমদ, মাওলানা আলতাফ হোসাইন, মুফতী সাইফুল ইসলাম, ইসলামী যুব খেলাফতের সাবেক সভাপতি মাওলানা আব্দুল কাইয়্যুম, মাওলানা মীর মোঃ হেদায়েতুল্লাহ গাজী, মুফতী তাসলীম আহমদ, মাওলানা মঞ্জুর মুজিব, মাওলানা আবুল খায়ের বিক্রমপুরী, মাওলানা সালমান আহমদ, মাওলানা কাজী আজিজুল হক,মাওলানা জাহিদ আলম, মুফতী শামসুল আলম, মাওলানা শহীদুল আনোয়ার, মাওলানা বিলাল হোসাইন, মাওলানা আল আমিন মামুন, মুফতী এনামুল হাসান, মাওলানা খোরশেদ আলম, মাওলানা আবুল হাসিম শাহী প্রমুখ। আরএম

সিটিজি ব্লাড ব্যাংক-এর ৬ বছরে পদার্পন

এম ওমর ফারুক আজাদ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

অনলাইন ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনদের মধ্যে দেশের অন্যতম বড় সংগঠন সিটিজি ব্লাড ব্যাংকের পঞ্চম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী গতকাল মঙ্গলবার নগরীর মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আয়োজিত এই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ জালাল উদ্দিন। উদ্বোধক ছিলেন প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী।

প্রধান অতিথি বক্তব্যে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জালাল উদ্দিন তার বক্তব্যে, ‘রক্তের প্রয়োজনে তরুণদের অগ্রণী ভুমিকা উল্লেখ করার পাশাপাশি মেডিকেলে রক্তের দালালদের নিয়ে রক্তের দাতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে মেডিকেলের ব্লাড ব্যাংকসহ মেডিকেল এরিয়াতে সিসি ক্যামেরা প্রতিস্থাপন ,রক্তদাতাদের নিরাপদ রক্ত সঞ্চালনসহ সিটিজি ব্লাড ব্যাংককে সব সময় সহযোগীতার আশ্বাস দেন’।

বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের হেমাটোলজির বিভাগের অধ্যাপক ডা. শাহেদ আহমেদ চৌধুরী।

খায়রুল আলম বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, “দেশে সাম্প্রদায়িক সমস্যা দেখা গেলেও রক্তদান এমন একটা সম্পর্ক যা দিয়ে সাম্প্রদায়িক সম্পৃতি বজায় রাখা সম্ভব। মানুষের মাঝে গভীর সম্পর্ক হচ্ছে রক্তের সম্পর্ক যা কখনো নিশ্চিহ্ন করার নয়, এটার জন্য অবদান রাখতে পারে তরুণরাই”। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ডা. শাহেদ আহমেদ চৌধুরী থ্যালাসেমিয়া প্রতিরোধের উপর জোর দেন।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার্স এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ শিপিং এজেন্টস এসোসিয়েশনের পরিচালক খায়রুল আলম সুজন, চট্টগ্রাম ওমেন চেম্বারের পরিচালক মোসাম্মৎ রোজিনা আক্তার লিপি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের সমাজসেবা অফিসার অভিজিত সাহা, রানার্স এসোসিয়েটস এর সভাপতি মঈনুল কাদের নাবিল। সভাপতিত্বে করেছেন সিটিজি ব্লাড ব্যাংকের এডমিন নিশি আক্তার প্রমুখ।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে অনুষ্ঠানে শতাধিক রক্তদাতা ও সামাজিক সংগঠনের সাথে আনোয়ারা ব্লাড ব্যাংকের প্রতিনিধিগণ ও উপস্থিত ছিলেন। এই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর গৃহীত কর্মসূচির মধ্যে ছিল র‌্যালি, আলেচনা সভা, রক্তনীড়-২ সংখ্যা উম্মোচন, তরুণ উদ্যোক্তা সম্মাননা, বেস্ট ডিসিপ্লিন এওয়ার্ড ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।আরএম

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ১, আহত ৩০

মাহমুদুল হাসান
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি

কিশোরগঞ্জের ভৈরবের ভবানীপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে তাহের মিয়া (৫২) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।সংঘর্ষে আহত হয়েছেন উভয়পক্ষের অন্তত ৩০ জন এছাড়া ১০-১৫টি বাড়িঘর ভাঙচুর করা হয়েছে।

বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে রক্তক্ষয়ী এই সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে পুলিশ ৫০ রাউন্ড রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। এছাড়াও,  এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয়রা জানায়, এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ ৪০ বছর ধরে ভবানীপুর এলাকার সাবেক জয়নাল মেম্বার সমর্থক ও ডা. হুমায়ুন সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ চলে আসছে। এরই জের ধরে বুধবার দুপুর আড়াইটার দিকে উভয়পক্ষ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এতে টেটাবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে আবু তাহেরের মৃত্যু হয়। এসময় আবু তাহেরের স্ত্রী রেহেনা বেগম (৪৫), ছেলে আশরাফুল (১৮) এবং বড় ভাই তারা মিয়াসহ (৬৫) উভয়পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রেহেনা, আশরাফুল ও তারাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠান। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

খবর  পেয়ে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দিলরুবা আহমেদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোখলেছুর রহমান  জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে। আরএম

নান্দাইলে বখাটের ছুরিকাঘাতে মাদরাসা ছাত্রী আহত

মুহাম্মদ তারিক জামি
নান্দাইল প্রতিনিধি

নান্দাইল উপজেলার আচারগাঁও ফাজিল মাদরাসা থেকে ২০১৮ সালের দাখিল পরীক্ষার্থী, আচারগাঁও জলসিড়ি বাসস্ট্যান্ড এলাকার বাকি বিল্লাহর কন্যা সাওদা আক্তার (১৬) বখাটে মিয়াদ হোসেনর ছুরিকাঘাতে গুরতর আহত হয়।

আজ (১৩ ডিসেম্বর) বিকাল ৪ টার দিকে আচারগাঁও জলসিড়ি বাসস্ট্যান্ডে, বখাটে মিয়াদ হোসেন প্রকাশ্যে সাওদা আক্তারকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,  ওই ছাত্রীকে গুরুত্বর আহত অবস্থায় নান্দাইল উপজেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নেওয়ার পর দ্রুত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মোঃ মশিউর রহমান জানান, আচারগাঁও জলসিড়ি বাসস্ট্যান্ড এলাকার আল আমিনের পুত্র মিয়াদ হোসেন উক্ত ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে প্রেম নিবেদন করে ব্যর্থ হয়ে ছুরিকাঘাত করে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে উক্ত ঘটনায় সহযোগীতা করার অপরাধে একই এলাকার ফেরদৌস ভূইয়ার পুত্র নোমান (১৮) কে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। এ রিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। অারএম

আজ নূরানী তালিমুল কুরআন বোর্ড-এর সমাপনী পরীক্ষার ফল প্রকাশ

আওয়ার ইসলাম : আজ বুধবার  নূরানী তালিমুল কুরআন বোর্ড এর তৃতীয় শ্রেণীর কেন্দ্রীয় সমাপনী পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হবে ।

রাজধানী ঢাকার  মুহাম্মদপুরের নুরানী টাওয়ারে (২৪বি, ব্লক সি, আদাবর মুহাম্মদপুর ) প্রতিষ্ঠানটির প্রধান কার্যালয়ে বিকেল ৩টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন, নূরানী তালিমুল কুরআন বোর্ড এর মহাসচিব মাওলানা কারী ইসমাঈল  বেলায়েত হুসাইন।

উক্ত অনুষ্ঠানে নূরানী তালিমুল কুরআন বোর্ড এর পরিচালক ও মহাসচিব মাওলানা ইসমাঈল বেলায়েত হুসাইন, বোর্ডের যুগ্ন মহাসচিব নুর আহমদ আল ফারুক, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা কালিমুল্লাহ জামিল হুসাইন, পরিক্ষা নিয়ন্ত্রক মাওলানা আবু বকর সিদ্দিকসহ দেশ বরেণ্য ওলামা কেরাম উপস্থিত থাকবেন।

মাওলানা ইসমাঈল বেলায়েত হুসাঈন জানান, গত নভেম্বর মাসের ২৫ কারিখে শুরু হয়ে ৩০ নভেম্বর পর‌্যন্ত ৬ দিনব্যাপী এই পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।  সারা বাংলাদেশে থেকে প্রায় চার’শ কেন্দ্রে  সতেরো হাজার পরিক্ষার্থী নূরানী তালিমুল কুরআন বোর্ডের তৃতীয় শ্রেণীর কেন্দ্রীয় সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে।

পরীক্ষার ফল পেতে ভিসিট করুন-  http://nooraniboard.com

নতুন বছরে জীবন বদলাতে গড়ে তুলুন ৮ অভ্যাস

একটি স্বাচ্ছন্দপূর্ণ জীবন পেতে গড়ে তুলুন কয়েকটি অভ্যাস, যেগুলো আপনার শরীর ও মনের জন্য উপকারী। সুস্থ স্বাভাবিক জীবন ও দীর্ঘায়ু পেতে এগুলো যেমন সাহায্য করবে তেমনি আপনার কাজেও জোগাবে নতুন উদ্যম। দেখে নিন কী কী অভ্যাস মেনে চলতে পারেন নতুন বছর থেকে।

১. নজর দিন স্বাস্থ্যের দিকে
নতুন বছরের শুরুটা হোক সুস্বাস্থ্য লাভের মধ্য দিয়ে। অলসতাকে না বলুন প্রথমেই। যতটুকু সম্ভব শারীরিক পরিশ্রম করুন। লিফটের বদলে না হয় সিঁড়িতেই উঠলেন কিংবা অল্প দুরত্বে যাতায়াত করলেন পায়ে হেঁটে।প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় রাখুন ফলমূল, শাক সবজি এবং পান করুন প্রচুর পানি। শরীরের বাড়তি ওজন ঝরিয়ে ফেলুন নিয়ম মেনে। এক্সারসাইজের জন্য যেতে পারেন জিমে। নিয়মিত আগ্রহ ধরে রাখতে একজন সঙ্গীকে সাথে নিতে পারেন। বিভিন্ন ফুড এবং এক্সারসাইজ এ্যাপস আছে যেগুলোর সাহায্যে আপনি জানতে পারবেন সারাদিন কতটুকু ক্যালরি ব্যয় করলেন এবং সচেতন থাকতে পারবেন আপনার স্বাস্থ্য সম্পর্কে।

২. ভ্রমণ করুন
বৈচিত্র্যে ভরপুর এই বিশাল পৃথিবী পুরোপুরি দেখা কারো পক্ষে হয়তো সম্ভব হয়নি, কিন্তু মানুষ হাল ছাড়েনি। তো আপনিও এ বছর থেকে লেগে পড়তে পারেন ভ্রমণে। প্রতি সপ্তাহে না হোক, মাসে একবার অন্তত বেরিয়ে পড়ুন নতুন জায়গার উদ্দেশ্যে, পাহাড়, নদী কিংবা ঐতিহাসিক কোনো স্থাপনায় । বন্ধু কিংবা সহকর্মীদের নিয়ে একটি দল বানান, যাদের সাথে বেড়াতে পারেন। মাসিক আয় বা হাত খরচ থেকে একটু করে টাকা জমিয়ে রাখুন বেড়ানোর জন্য । মাসে একবার ভ্রমণে গেলে বছর শেষে আপনার দেখা হয়ে যাবে ১২টি জায়গা।

৩. হতাশা ও দুশ্চিন্তা দূরে রাখুন
দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপ আপনার কাজে খারাপ প্রভাব ফেলে, জীবনকে করে দেয় দুর্বিষহ। নতুন বছরে চেষ্টা করুন দুশ্চিন্তা এড়িয়ে চলতে। এতে কাজগুলো করতে পারবেন নির্বিঘ্নে, কাজে মনোযোগও আসবে। সকালে বা রাতে প্রতিদিন মেডিটেশন ও হালকা এক্সারসাইজ এক্ষেত্রে মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে ।
মানসিক চাপ কমাতে বছরের শুরু থেকে কোনো গঠনমূলক কাজে নেমে পড়ুন। হতে পারে সেটা কোনো স্বেচ্ছাসেবামূলক কিংবা শরীরচর্চা অথবা নতুন কোনো কোর্স। যাতে করে আপনি নিজেকে ব্যস্ত রাখতে পারবেন। নিজের দুঃখ নিয়ে ঘরের কোণে বসে না থেকে চারপাশের মানুষকে দেখুন, কেউ থেমে নেই হতাশ হয়ে ।  তো, দুশ্চিন্তা ও হতাশাকে দূরে রাখুন এ বছর থেকে।

৪. ফাস্টফুড এবং মাদককে না বলুন
কাজের ফাঁকে অথবা ক্লাসের চাপে লাঞ্চ বা ডিনার সময়মতো করা হয় না, করলেও খেতে হয় বাইরের খাবার বা ফাস্টফুড। এতে যেমন মাসে শেষে পকেটেও টান পড়ে তেমনি শরীরের জন্যও বিশেষ সুফল বয়ে আনে না মুখরোচক ফাস্টফুডগুলো। বাইরের ফাস্টফুড খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে বাড়িতে রান্না করা খাবারে অভ্যস্ত হোন এ বছর থেকে। এতে যেমন তৃপ্তি পাবেন, তেমনি প্রয়োজনীয় পুস্টিরও জোগান দেবে ।যাদের ধুমপান ও মদ্যপানের অভ্যাস আছে তারা এ বছর থেকে কমিয়ে ফেলুন। যদি একবারে না পারেন তবে গ্রহণের পরিমাণ আস্তে আস্তে কমাতে থাকুন।

৫. শিখুন নতুন কিছু
নতুন বছরে শিখে নিতে পারেন নতুন কিছু। সেটি হতে পারে নতুন কোনো ভাষা, সুস্বাদু রেসিপি বা যেকোনো কিছু। সাঁতার বা ড্রাইভিংও শিখে ফেলতে পারেন, বাস্তব জীবনে দারুণভাবে কাজে দেয় এই দুটি দক্ষতা । নতুন কিছু শেখা কষ্টকর এবং সময়সাপেক্ষ, তবে হাল ছাড়লে চলবে না । শুরু করুন ছোট ছোট টার্গেট পূরণ করে, আনন্দদায়ক উপায়ে।

৬. প্রিয়জনদের সময় দিন
প্রিয়জনের সাথে সময় কাটানো শরীর এবং মন দুটোর জন্যেই উপকারী । বিভিন্ন কাজে ব্যস্ততা থাকবেই কিন্তু তার মাঝেও সময় রাখুন পরিবার ও বন্ধুদের জন্য।প্রিয়জনের সান্নিধ্য আপনাকে প্রফুল্ল রাখবে। ছুটির দিনে পরিবার নিয়ে কোথাও বেড়াতে যেতে পারেন অথবা পুরনো বন্ধু্দের সাথে মেতে উঠুন হাসি ঠাট্টায় কিংবা বাড়িতেই আপ্যায়ন করুন সহকর্মীদের। পরিবারের বয়োজেষ্ঠদেরকেও সময় দিন। তাদের অভিজ্ঞতাও যেমন আপনার কাজে আসবে তেমনি আপনার সান্নিধ্যেও তারা খুশি হবে।

৭. গুছিয়ে নিন নিজেকে
গোছালো থাকা একটি বড় গুণ। এতে করে কাজের জটিলতা অনেক কমে আসে এবং কাজের সময় বিরক্তিও কমে আসে । সপ্তাহের কাজগুলো ভাগ করে নিন এবং লিখে রাখুন নোট আকারে। দিন শেষে কিছুক্ষণ সময় রাখুন সারাদিনের কাজের হিসাব মেলাতে এবং পরের দিনের কাজের প্রস্তুতি নিতে। কয়েকটি ফাইল ও বক্স নিন, প্রয়োজনীয় কাগজ ও জিনিসগুলো গুছিয়ে রাখুন আলাদা আলাদা ফাইলে। বাড়ি বা কাজের জায়গায় এভাবে জিনিসপত্র গুছিয়ে রাখলে খুঁজে পেতে সুবিধা হবে। এভাবে নতুন বছরে গুছিয়ে নিন নিজেকে।

৮. সেলফোন ব্যবহার কমান
সেলফোন ব্যবহার যে নেশার শামিল সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। ফেসবুকে একটু ঢুঁ মারতে গিয়ে কখন আপনার মূল্যবান সময় ফুরিয়ে যায় টের পাওয়া যায় না। কাজের সময় ফোন দূরে রাখুন অথবা সাইলেন্ট রাখুন। অবসরে ফোন স্ক্রলের পরিবর্তে নতুন বছর থেকে হাতে নিন পত্রিকা বা বই।এক গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিদিন গড়ে আমরা ১০০ বার ফোন ব্যবহার করি। ফোনে অতিরিক্ত সময় দেওয়া থেকে বিরতির জন্য বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন উপায় বের করেছেন। দিনের একটা নির্দিষ্ট সময় ঠিক করে নিন যখন প্রয়োজনীয় মেইল বা ফেসবুকের নিউজ ফিডটায় ঢুঁ মারবেন ।

সূত্র : ইয়ুথ কার্নিভাল/আরএম

‘জিন্স পরা মেয়েদের কোনও ছেলেই বিয়ে করবে না’

আওয়ার ইসলাম : ভারতের ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) নেতারা একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্য করে যাচ্ছে। সম্প্রতি এমন এক বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন বিজেপি নেতা সত্যপাল সিং। তিনি ভারতের কেন্দ্রীয় মানবসম্পদ উন্নয়নমন্ত্রীও।

মেয়েদের পোশাক নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন তিনি। একটি অনুষ্ঠানে সত্যপাল সিং দাবি করেছেন, জিন্স পরা মেয়েদের কোনো ছেলেই বিয়ে করবে না৷

তিনি বলেন, বিয়ে একটি সামাজিক অনুষ্ঠান৷ এই ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠানে মেয়েরা কেন শাড়ি পরবে? এই নিয়েই প্রশ্ন তোলেন তিনি৷ পাশাপাশি তিনি দাবি করেন, যদি বিয়ের মণ্ডপে কোনো নারী জিন্স পরে আসেন তাহলে সে বিবাহযোগ্য নয়৷ এমনকি কোনো ছেলেই তাকে বিয়ে করবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি৷ এমনকি ওই নারীরা ছেলেদের কাছে অশ্রদ্ধার পাত্রী হয়ে উঠবে৷

গোরখপুরের মহারানা প্রতাপ শিক্ষা পর্ষদের প্রতিষ্ঠাতা দিবস উপলক্ষে একটি অনুষ্ঠানে এমনই এক বিতর্কিত মন্তব্য করেন সত্যপাল সিং। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এছাড়া বিজেপির আরও নেতা নেত্রীরা উপস্থিত ছিলেন এই অনুষ্ঠানে। কিন্তু এই ধরনের বক্তব্যের প্রতিবাদ করেননি কেউই।

উল্লেখ্য, নারীদের পোশাক নিয়ে এই ধরনের মন্তব্য ভারতে নতুন নয়৷ ধর্ষণকাণ্ড থেকে শুরু করে পুরুষদের উত্তেজিত করাসহ সব কিছুর জন্যই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে নারীদের পোশাককেই মনে দায়ী করেন ভারতের অনেকে। আরএম

দক্ষিন সুদানে ব্যাপক সংঘর্ষ, নিহত ১৭০

আওয়ার ইসলাম
ডেস্ক

দক্ষিণ সুদানে দু’টি উপগোত্রের মধ্যে সংঘর্ষে একশ ৭০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। সে দেশের একজন সাংসদ ধারুয়াই মাবর টেনি এ কথা জানান।

সাংসদ ধারুয়াই জানান, দক্ষিণ সুদানের পশ্চিমের লেক অঞ্চলে গত সপ্তাহ থেকে শুরু হওয়া সংঘর্ষে আরও দুই শতাধিক লোক আহত হয়েছে।

নাইরোবি থেকে বিবিসির ফার্দিনান্দ ওমোন্দি জানান, সেখানে সংঘর্ষের ঘটনা নৈমিত্তিক ঘটনা। তবে হতাহতের এ ঘটনা একেবারে দুঃখজনক। এরকম পরিস্থিতিতে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন প্রেসিডেন্ট সালভা কির।

সাংসদ ধারুরাইবার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, গত সপ্তাহ থেকে এখন পর্যন্ত উভয় পক্ষের একশ ৭০ জনের বেশি লোক প্রাণ হারিয়েছেন। পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে তিনশ ৪২ বাড়ি এবং এক হাজার আটশ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছেন।

প্রেসিডেন্ট সালভা কিরের একজন মুখপাত্র জানান, তাদের বিশ্বাস জরুরি পরিস্থিতি ঘোষণার ফলে সহিংসতা কিছুটা হলেও কমবে।

সূত্র : বিবিসি

যে কারণে ইসলাম গ্রহণ করেন মোহাম্মদ আলী

ক্রীড়াজীবনের শুরুর দিকেই কিংবদন্তি মুষ্টিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী রিংয়ের ভেতরে ও বাইরে অনুপ্রেরণাদায়ী ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার পর তিনি আমেরিকান মুসলিমদের আদর্শ ব্যক্তিত্বে পরিণত হন।

এক চিঠিতে মোহাম্মদ আলী তাঁর ধর্মান্তরিত হওয়ার কারণ বর্ণনা করেছেন। তিনি কেন মুসলিম হলেন, তা একটি কাগজে আলীকে লিখে রাখতে বলেছিলেন তাঁর স্ত্রী বেলিন্দা। এরপরই তিনি বেলিন্দার জন্য ওই চিঠি লেখেন।

আলী চিঠিতে লুইসভিলেতে তাঁর কৈশোরের কথা উল্লেখ করেন। তখন তাঁর নাম ছিল ক্যাসিয়াস ক্লে। তখন রাস্তা দিয়ে স্কেটিং করার সময় ফুটপাতে কোনো সুন্দরী নারী হেঁটে যাচ্ছে কি না, তা নজরে রাখতেন তিনি। আর এটি করতে গিয়েই মুসলিম সংগঠন ‘নেশন অব ইসলাম’–এর পক্ষে পত্রিকা বিক্রি করতে দেখেন এক ব্যক্তিকে। ওই সংগঠন ও সংগঠনটির নেতার বিষয়ে আলী আগে থেকেই শুনেছিলেন। তবে ওই সংগঠনে যোগ দেওয়ার বিষয়টি তিনি তখন গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করেননি। সংগঠনটি ইসলামের আলোকে আত্মোন্নয়ন ও কৃষ্ণাঙ্গদের বিচ্ছিন্নতার কথা প্রচার করত।

ভদ্রতার খাতিরে আলী একদিন ওই সংগঠনের পত্রিকা কেনেন। পত্রিকায় প্রকাশিত একটি কার্টুন তাঁর নজরে আসে। কার্টুনে দেখা যায়, এক শ্বেতাঙ্গ মালিক তাঁর কৃষ্ণাঙ্গ দাসকে মারধর করছেন এবং যিশুর কাছে প্রার্থনা করার জন্য ওই দাসকে চাপ দিচ্ছেন। কার্টুনের বার্তা ছিল—শ্বেতাঙ্গরা তাঁদের দাসদের ওপর খ্রিষ্টধর্ম জোর করে চাপিয়ে দিয়েছে। কার্টুনটি আলীর মনে দাগ কাটে।

চিঠিতে ইসলামের প্রতি আলী কেন আকৃষ্ট হন, তার কোনো আধ্যাত্মিক ব্যাখ্যা দেননি। এ বিষয়টি তিনি বাস্তবতার আলোকেই ব্যাখ্যা করেন। ওই কার্টুন তাঁকে জাগিয়ে তোলে। তিনি বুঝতে পারেন, খ্রিষ্টধর্ম তাঁর পছন্দ নয়। ক্যাসিয়াস ক্লে নামটিও তাঁর পছন্দ নয়। কাজেই তিনি কেন দাসত্ব বয়ে বেড়াবেন?

১৯৬৪ সালে ২২ বছর বয়সে মোহাম্মদ আলী বিশ্ব হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়নশিপ জিতে নেন। এরপর আলী জনসমক্ষে খ্রিষ্টধর্ম ত্যাগ করার কথা এবং নিজের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, ‘আমি আল্লাহ এবং শান্তিতে বিশ্বাস করি। আমি শ্বেতাঙ্গ প্রতিবেশীদের কাছে যাওয়ার চেষ্টা করব না। আমি শ্বেতাঙ্গ কোনো নারীকেও বিয়ে করতে চাই না। ১২ বছর বয়সে আমি খ্রিষ্টধর্মে দীক্ষিত হই। তবে আমি কী করছি, তখন তা জানতাম না। আমি আর খ্রিষ্টান নই।’

নেশন অব ইসলামের নেতা এলিজা মোহাম্মদের মৃত্যুর পর সংগঠনটির আমূল সংস্কার করা হয়। এরপর আলী আনুষ্ঠানিকভাবে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করেন। পারকিনসনস রোগে আক্রান্ত হলে আলীর কণ্ঠে জড়তা চলে আসে। তবে তিনি মাঝেমধ্যে ধর্মীয় বিষয়ে দীর্ঘ আলোচনার জন্য তাঁর গুণগ্রাহীদের আমন্ত্রণ জানাতেন।

মোহাম্মদ আলীর জীবনী নিয়ে লেখা গ্রন্থ ‘আলী’র রচয়িতা জনাথন ইগ তাঁর ওই গ্রন্থটি রচনার জন্য আলীর স্ত্রী বেলিন্দার সাক্ষাৎকার নেন। এ সময় বেলিন্দা তাঁকে ওই চিঠিটি দেন। গত বুধবার জনাথন সেটি নিয়ে আফ্রিকান আমেরিকান ইতিহাস ও সংস্কৃতিবিষয়ক জাতীয় জাদুঘরে যান। তাঁর উদ্দেশ্য জাদুঘরের সংগ্রহশালায় চিঠিটি দেওয়া। সূত্র : প্রথম আলো/আরএম