All posts by ourislam5

নামাজের সময় নির্ধারণে আধুনিক প্রযুক্তি

আব্দুল্লাহ বিন রফিক

মহাকাশ পর্যবেক্ষণের জন্য আধুনিক ক্যামেরা টেকনোলজি এবার বৃটেনে ফজর নামাজের সময় নির্ধারণের জন্য ব্যবহার হতে যাচ্ছে। দেশে সবাই একসাথে যেনো নামাজ আদায় করতে পারে সে জন্যই এই ব্যবস্থা।

ফজর নামাজ সূর্য উদয়ের পূর্বে পড়া হয়। আর এ কারণে লোকেরা বিভিন্ন মসজিদে পৃথক সময় নির্ধারণ করে আলাদা আলাদা সময়ে সালাত আদায় করে থাকে। কাছাকাছি মসজিদগুলোরও একই চিত্র।
ব্রিটেনের প্রভাবশালী জাতীয় দৈনিক দি টাইমসের সূত্রানুসারে ওপেন ফজর প্রজেক্ট শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় এই নতুন টেকনোলজি ব্যবহার করা হচ্ছে।

ড.শাহেদ মীর আলী হলেন এই প্রজেক্টের একজন অন্যতম কর্ণধার। যিনি ফজরের নামাজের যথাযথ সময় নির্ধারণের জন্য এই টেকনোলজির ব্যবহার বিভিন্ন মসজিদে করছেন। এটাকে তিনি খোলা আকাশ থেকে তথ্য সংগ্রহ করার কাজে ব্যবহার করেন।
এর জন্য এমন লাইট সেন্সেটিভ ক্যামেরা ব্যবহার করা হচ্ছে যা ৩৬০ ডিগ্রি ছবি গ্রহণে সক্ষম।

প্রজেক্টের আওতায় এই ক্যামেরাকে প্রথমে একটি ছাদে স্থাপন করা হয়েছে যা এক বছর ধরে ফজরের সময়গুলোতে আকাশের ২৫ হাজার ছবি নিবে।

গবেষক ও ওলামায়ে কেরাম এই ছবিগুলো যাচাই করে বার্মিংহাম অঞ্চলের দেড় লাখ মুসলিমদের জন্য বিদ্যমান ১৭০টি মসজিদে মুসল্লিদের নিজামুল আওকাত সময় তথা সময় শৃঙ্খল নির্ধারণ করেছেন।

এই প্রজেক্টের বিস্তারিত বিবরণ অনলাইনে প্রকাশ করা হয়েছে। এখন লন্ডন সহ পিটার বোর্ফ ইত্যাদি অঞ্চলে কাজ করার প্রকল্প বাস্তবায়ন করার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

সূত্র: ডন নিউজ ডটকম

আরআর

ট্রাম্পের অভিযোগ: মার্ক জাকারবার্গের প্রত্যাখ্যান

আওয়ার ইসলাম: ফেইসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ ও তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ‘গোপন আঁতাতের’  অভিযোগ আনা হয়েছে। অভিযোগটি করেছেন স্বয়ং মার্কীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল ট্রাম্প।

গত বুধবার  এক টুইটে ট্রাম্প বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয়  সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তোলেন। ফেইসবুককে ‘ট্রাম্পবিরোধী’ খেতাবও দেন তিনি।

বিবিসি জানিয়েছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট একই টুইটে সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস ও ওয়াশিংটন পোস্টের বিরুদ্ধেও একই ধরনের অভিযোগ আনেন।

ট্রাম্পের টুইটের কয়েক ঘণ্টা পর ফেইসবুকে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় জাকারবার্গ তার প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেন, সব ধারণার সন্নিবেশ ঘটানো যায় এমন একটি প্লাটফর্ম বানানোর চেষ্টা করছেন তিনি।

জাকারবার্গ বলেন, ‘সমস্যাযুক্ত বিজ্ঞাপন’ বাদ দিলে ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ফেইসবুকের অবদান কম নয়।

“ফেইসবুক জনগণকে কণ্ঠ দিয়েছে; প্রার্থীদের সরাসরি যোগাযোগের সুযোগ করে দিয়েছে, লাখ লাখ মানুষকে ভোট দিতে উদ্বুদ্ধ করেছে, সাহায্য করেছে।”

বড় দুই রাজনৈতিক শক্তি নির্বাচনের সময় ফেইসবুকে যার যার অপছন্দের বিষয় দেখে হতাশ হয়েছে বলেও স্বীকার করেন তিনি। ট্রাম্পের জয়ে সুযোগ করে দেওয়ায় উদারপন্থিরা তাকে অভিযুক্ত করেন বলেও মন্তব্য জাকারবার্গের।

নির্বাচনের সময় অনলাইন প্রচারে প্রার্থীরা কোটি কোটি ডলার ব্যয় করেছেন উল্লেখ করে ফেইসবুকের এই প্রতিষ্ঠাতা বলেন, অন্য সময়ের তুলনায় তখন হাজারগুণ বেশি ‘সমস্যাযুক্ত বিজ্ঞাপনের’ অস্তিত্ব পেয়েছেন তারা।

ফেইসবুকে ভুল তথ্য নির্বাচনের ফল বদলে দিয়েছে এমন ভাবনাকে ‘পাগলামি’ বলার জন্যও দুঃখ প্রকাশ করেন ৩৩ বছর বয়সী এই মাল্টিমিলিয়নেয়ার। নির্বাচনে ট্রাম্প জেতার পর উদারপন্থিদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে জাকারবার্গ ওই কথা বলেছিলেন।

‘সবার জন্য একটি সম্প্রদায় বানাতে’ ফেইসবুক ধারাবাহিকভাবে কাজ করে যাবে প্রতিশ্রুতি দিয়ে জাকারবার্গ অন্য কোনো রাষ্ট্রের ছড়ানো ভুল তথ্য প্রতিরোধ এবং নির্বাচনের ফল বদলে দেয়ার চেষ্টার বিরুদ্ধে তার প্রতিষ্ঠান থাকবে বলেও মন্তব্য করেন।

সাত ঘণ্টার মধ্যে জাকারবার্গের ওই পোস্টে সোয়া লাখ ‘লাইক’ পড়েছে, মন্তব্য করেছেন ৮ হাজার ব্যক্তি। শেয়ার হয়েছে নয় হাজার বার।

যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনের রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বিষয়ে কংগ্রেসের তদন্ত দলকে তিন হাজারেরও বেশি বিজ্ঞাপনের তথ্য দেওয়ার কথা ফেইসবুকের। সামাজিক এই যোগাযোগমাধ্যমের ধারণা, নির্বাচনের সময় ও পরে দেওয়া এসব বিজ্ঞাপনের পেছনে রাশিয়ান প্রতিষ্ঠানগুলোর হাত থাকতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের তদন্ত সংস্থাগুলোর দাবি, ২০১৬-র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পকে জেতাতে রাশিয়ার ভূমিকা ছিল।

যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের একটি কমিটি ও এফবিআই এই বিষয়ে তদন্ত করলেও ক্রেমলিন শুরু থেকেই মার্কিন নির্বাচনে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।

নির্বাচনী প্রচারের সময় রিপাবলিকান শিবিরের কর্মকর্তারা রাশিয়ার সঙ্গে অনৈতিকভাবে যোগাযোগ করেছেন, এমন অভিযোগের কড়া জবাব দিয়েছেন ট্রাম্পও।

নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ বিষয়ে তথ্য দিতে ফেইসবুক, গুগল ও টুইটারকে চিঠি দিয়েছে সিনেটের ইন্টিলিজেন্স কমিটি।

ফেইসবুক ও গুগল কর্তৃপক্ষ চিঠি পাওয়ার কথা স্বীকার করেছে।

যদিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের এই তিন ‘জায়ান্ট’ প্রতিষ্ঠানের কেউই এখন পর্যন্ত ১ নভেম্বরের শুনানিতে হাজির হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেনি বলে জানিয়েছে বিবিসি।

সামরিক হুমকি দিয়ে মিয়ানমারকে নিয়ন্ত্রণে আনা যেতে পারে

আওয়ার ইসলাম: রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর যে দমন-পীড়ন চলছে তা অবসানে  মিয়ানমারের উপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়ানোর কথা বলা হচ্ছে বিভিন্ন মহল থেকে। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের উপর চাপ সৃষ্টির কথা বলছে বাংলাদেশও।

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তনিও গুতেরেস রোহিঙ্গাদেরকে অন্তত স্বাধীন ভাবে ঘোরাফেরার অধিকার বা কাজের সুযোগ, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার দাবি তুলেছেন। খবর বিবিসির।

সীমান্তের অপর পাশে বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থা সরেজমিনে দেখতে বুধবার সফরে আসার কথা রয়েছে তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত চাভুসোগলুর।

একই ইস্যুতে মঙ্গলবার ঢাকায় সফর করেছেন ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেত্নো মাসুদি। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এম শাহীদুজ্জামান বিবিসিকে জানিয়েছেন, মিয়ানমার দীর্ঘসময় ধরে একলা চলে অভ্যস্ত হয়ে গেছে। আন্তর্জাতিক চাপকে তারা খুব বেশী গুরুত্ব দেয় না।

তিনি আরো বলেন, প্রচুর সম্পদ তারা পেয়েছে। তাদের যে সামরিক কর্তৃত্ব, সত্তর বছর ধরেই তারা বল প্রয়োগ করে দেশটাকে এক করে রেখেছে।

তবে সামরিক পদক্ষেপের হুমকি দিয়ে মিয়ানমারকে নিয়ন্ত্রণে আনা যেতে পারে বলে মনে করেন প্রফেসর শাহীদুজ্জামান। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের সঙ্গে ইন্দোনেশিয়া এবং তুরস্ক মিলে একটি সামরিক জোট করা যেতে পারে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, এই জোটের মাধ্যমে সরাসরি যদি মিয়ানমারকে হুঁশিয়ারি দেয়া যায় যে, পরিণতি অত্যন্ত শোচনীয় হবে এবং যদি তারা তা মেনে নেয় তাহলে সামরিক পদক্ষেপ অসম্ভব কিছু না। এই ভাষা ছাড়া অন্য কোন ভাষাকে তারা মোটেই গুরুত্ব দেবে না বলেও উল্লেখ করেন প্রফেসর শাহীদুজ্জামান।

মাছ নয়, জালে আটকালো কুমির

jale-kumirআওয়ার ইসলাম: নাটোরের লালপুর উপজেলার পদ্মা নদীতে এক জেলের জালে প্রায় পাঁচ ফুট লম্বা এক কুমির ধরা পড়েছে। বুধবার সকাল ১০টার দিকে এ কুমিরটি ধরা পড়ে।

জেলে আনারুল ইসলাম প্রতিদিনের মতো পদ্মা নদীর নওসারা সুলতানপুর এলাকায় মাছ ধরতে বেড়িয়ে পড়ে। এদিনও বের হলো। এদিন আর মাছের দেখা পেলো না। দেখা পেলো জ্বলজ্যান্ত এক সাক্ষাৎ কুমিরের। জালে কুমিরটি আটকে যাবার পর অন্যান্য জেলের সহযোগিতায় কুমিরটিকে ধরে ফেলা হয়।

জানা যায়, কুমিরটিকে ধরার পর প্রশাসনকে বিষয়টি জানানো হয়। সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন লালপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু তাহির, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান ও  লালপুর থানা পুলিশের কর্মকর্তা (ওসি) আবু ওবায়েদ প্রমুখ।

এ ব্যাপারে লালপুর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান জানান, কুমিরটি মাছ ধরার জালে আটকা পড়লে স্থানীয় জনতা উদ্ধার করে পাশের একটি পুকুরে রাখে। ঊর্ধ্বতন মহলের সঙ্গে আলোচনা করে তারপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এবিআর

ধর্মের অপব্যাখ্যা রোধে ইমামদের এগিয়ে আসার আহবান: তথ্যমন্ত্রী

inu-2আওয়ার ইসলাম: মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (টিএসি) মিলনায়তনে আয়োজিত ‘আন্তঃধর্মীয় সম্প্রীতি সম্মিলন’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু এই আহবান জানান।

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় রুখবো আমরা জঙ্গিবাদ’ স্লোগানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল ও মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক সংগঠন অপরাজেয় বাংলা যৌথভাবে এই অনুষ্ঠানে আয়োজন করে।

দেশজ সংস্কৃতিকে অস্বীকার করে তারাই জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের মদদ দাতা মন্তব্য করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্মের নামে জঙ্গি ও সন্ত্রাসীদের অপব্যাখ্যা দূর করতে ধর্মীয় উপাসনালয়ের প্রধানদের এগিয়ে আসতে হবে। যারা ধর্ম চর্চার নামে দেশজ সংস্কৃতিকে অস্বীকার করে তারাই জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসবাদের মদদ দাতা। ধর্মের জন্য মানুষ নয়, মানুষের জন্য ধর্ম।’

‘ধর্মের সাথে দেশের কোনো সংঘর্ষ নেই। এই দেশের চার হাজার বছরের সভ্যতা বিকশিত হয়েছে। এই সভ্যতার মাধ্যমেই দেশে বিভিন্ন ধর্মের আর্বিভাব হয়েছে।’

‘ধর্মের টুপি’ সামনে আনলে মনুষ্যত্বের কারণে সংঘর্ষ হয় বলেও মন্তব্য করেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দেশ রক্ষা করতে চাইলে, ধর্ম রক্ষা করতে চাইলে, জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকুন। আমাদের সংবিধান প্রত্যেক ধর্মেরই স্বীকৃতি দিয়েছে। জঙ্গিবাদ একটা মনগড়া ব্যবস্থা, যা গণতন্ত্র ও সন্ত্রাস বিরোধী। মানুষ বহু পথে এগোয়, যার যার ধর্ম তার তার কাছে। কোনো ধর্মই মানুষকে ছোট করে না।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নাসরীন আহমদ, ইসলামি স্টাডিজ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুর রশিদ, ঢাকা রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী ধ্রুবেশানন্দ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্লি বিভাগের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক জিনো বোধি ভিক্ষু, নটরডেম কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফাদার বেঞ্জামিন ডি কস্তা।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন।

এবিআর

আল্লাহ করিম মসজিদের ২০ কোটি টাকা লুট

thanaআওয়ার ইসলাম: আল্লাহ করিম জামে মসজিদের বিগত কমিটির যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল কাদের মসজিদের দোকান বরাদ্দ ও ভাড়া বাবদ ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

মোহাম্মদপুর থানার ওসি জামাল উদ্দিন মীর জানান, মসজিদের ওয়াকফ এস্টেটের পক্ষে কাঁটাসুরের জহির হোসেন গত ১৫ নভেম্বর যুগ্ম সম্পাদক আব্দুল কাদেরের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন।

জহিরের অভিযোগ, ২০০৫-২০১৬ মেয়াদে মসজিদ কমিটিতে থাকার সময় আব্দুল কাদের ওই টাকা আত্মসাত করেছেন।

মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ডের কাছে ওয়াকফ এস্টেটের ওই মসজিদের নিচতলায় ১০৪টি দোকান রয়েছে। এছাড়া দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ তলার কিছু অংশ বাণিজ্যিক কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে ভাড়া দেওয়া হয়েছে।

এসব দোকান ও প্রতিষ্ঠান বরাদ্দ দেওয়ার নাম করে আব্দুল কাদের পৌনে ২ কোটি টাকা এবং দোকান থেকে আসা ভাড়াসহ প্রায় ২০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করা হয়েছে মামলায়।

জহির বলছেন, কাদেরের স্বাক্ষরে দোকান বরাদ্দ ও ভাড়া আদায় হলেও তা মসজিদ তহবিলে জমা পড়েনি। স্বাক্ষরসহ ওই লেনদেনের প্রমাণ পুলিশের কাছে দেওয়া হয়েছে।

কাদের ওয়াকফ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই নিয়ম বহির্ভুতভাবে প্রতিটি দোকানকে ‘৯৯ বছরের জন্য লিজ দেন’ বলেও মোহাম্মদপুর থানায় করা মামলায় বলা হয়েছে।

জহির জানান, মেয়াদোত্তীর্ণ ওই মসজিদ কমিটি বাতিল করে ওয়াকফ কর্তৃপক্ষ তাকেসহ কয়েকজনকে দায়িত্ব দিয়েছে। আর ওয়াকফ কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়েই তিনি এ মামলা করেছেন।

এদিকে মামলার আসামি আব্দুল কাদের সোমবার আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চেয়েছিলেন বলে বাদীপক্ষের আইনজীবী আন্না খানম কলি জানিয়েছেন।

“আসামি গোপনে আদালতে এসে জামিনের আবেদন করছে জানতে পেরে আমরা আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিনের বিরোধিতা করি। আসামিপক্ষের আইনজীবীরা পরে তাদের আবেদন ‘নজিরবিহীনভাবে’ উঠিয়ে নিয়ে যান।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাদেরের আইনজীবী আইয়ুবুর রহমান বলেন, ‘শুনানির পর আমরা আদেশের অপেক্ষায় ছিলাম। আদালত আদেশ না দেওয়ায় আমরা নথি ফেরত নিয়েছি। আদালত চাইলে নথি ফেরত দিতে পারে’  বলে জানান তিনি।

কাদের আত্মগোপনে থাকায় এ বিষয়ে তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।

ওসি জামাল বলেন, ‘এরইমধ্যে কয়েকবার তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হয়েছে। অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

সূত্র: বিডিনিউজ

এবিআর

মালয়েশিয়ায় ৭৬৭ অবৈধ বাংলাদেশি আটক

maloyeshia-2আওয়ার ইসলাম: মালয়েশিয়াতে ইতোমধ্যে প্রায় হাজার খানেক অবৈধ নির্মান শ্রমিক আটক করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৭৬৭জন হচ্ছে বাংলাদেশি। মালয়েশিয়ার বার্তা সংস্থা বারনামা জানায়, আটককৃতদের মধ্যে পাকিস্তানি আছে ৮০ জন। ভারতীয় ৫০ ইন্দোনেশিয়ার ২২ শ্রীলংকার ১৩ মিয়ানমারের ৩ ও নেপালের আছেন ১ জন। আটককৃত এসব মানুষের বয়স ২০ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে।

২৭ নভেম্বর দেশটির পোর্ট ডিকসন এলাকায় নির্মাণ প্রতিষ্ঠানগুলোতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

নেগরি সেমবিলাম অভিবাসন বিষয়ক পরিচালক হাপদজান হুসেইনি জানিয়েছেন, মোট আটকের সংখ্যা ৯৩৬। বিভিন্ন অপরাধে এসব অভিবাসীকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ভুয়া কাগজপত্র, নির্ধারিত সময়ের বেশি সময় মালয়েশিয়ায় অবস্থান।

১৯৯৯ সালের সরকারি হিসাব অনুযায়ী কাজের সন্ধানে মালয়েশিয়া গিয়েছেন মোট ৩ লাখ ৮৫ হাজার ৪৯৫ জন বাংলাদেশি। বিদেশে যত বাংলাদেশি শ্রমিক হিসেবে কাজ করতে গিয়েছেন এ সংখ্যা তার শতকরা ১২ ভাগ।  ১৯৯২ সালের জুলাই থেকে ১৯৯৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত ৮৯ হাজার ১১১ জন বাংলাদেশিকে দেয়া হয়েছে অস্থায়ী কাজের অনুমতি, ২৬ হাজার ৪৮৪ জনকে দেয়া হয়েছে নির্মাণ প্রতিষ্ঠানে কাজের ভিসা। এর ফলে মালয়েশিয়ায় নির্মাণ শিল্পে সব শ্রমিকের মধ্যে বাংলাদেশিরা এক-পঞ্চমাংশ।

এবিআর

সীমান্ত খুলে দিতে প্রাইভেট মাদরাসা এ্যাসোসিয়েশনের আহবান

privet-madrasaআওয়ার ইসলাম:   বার্মার সরকারের স্পষ্ট মদদে বঞ্চিত ও নিপীড়িত রোহিঙ্গাদের ওপর কালের এই জঘন্যতম নির্যাতনের প্রতিবাদে ফুঁসে উঠে সারা বিশ্ব। প্রতিবাদ ঝড়ের সেই আসন্ন হাওয়া বাংলাদেশও উঠে। একে একে সরব হয় বিভিন্ন সংগঠন। প্রতিবাদের কাতারে আজ যোগ হয়েছে সামাজিক সংগঠন প্রাইভেট মাদরাসা এ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ।

আজ এক মানববন্ধনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় সংগঠনটির আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদ। দুপুর ১২টা থেকে ০১টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে পালিত হয় সংগঠনটির  মানববন্ধন কর্মসূচি। ৩০০ গজ দীর্ঘ এই মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করে ইমাম খতিব মুয়াজ্জিন মুসল্লিসহ সকল স্তরের আমজনতা।

প্রাইভেট মাদরাসা এ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ এর সভাপতি মাওলানা কারী মাসুম বিল্লাহ এর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তৃতা করেন মুফতি ওহিদুল ইসলাম, মাওলানা শাহাবুদ্দিন সরকার, মাওলানা মুফতি যুল হাসান হাবিব।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন মাওলানা ফজলুল হক ছিদ্দিকী, মাওলানা মাহদী হাসান, মুফতি মাওলানা কাওসারসহ আরো অনেক ওলামায়েকেরাম।

মানববন্ধনের প্রধান অতিথি ছিলেন শাইখুল হাদীস মাওলানা আজিমুদ্দীন। তিনি তার বক্তৃতায় বার্মায় মুসলিম নির্যাতনের বিবরণ দিয়ে সরকারের কাছে অতিদ্রুত সীমান্ত খুলে দেয়ার  আহবান জানান। তিনি বলেন, নির্যাতিত মুসলিমদের পাশে দাঁড়িয়ে মানবতাকে রক্ষা করুন।তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের আপামর জনতা তাদের গ্রহণ করার জন্য প্রস্তুত। সরকারের মাধ্যমে জাতিসংঙ্ঘের দ্বারা বার্মার মুসলমানদের শান্তিময় সমাধানের দাবী করেন।

সংগঠনের মহাসচিব মুফতি নেয়ামতুল্লাহ আমিন তার বক্তৃতাকালে বলে আপনি সীমান্ত খুলে দিন। মদীনার আনসারদের মতো বাংলাদেশের জনগণ তাদেরকে গ্রহণ করবে। ওরা আমাদের জাতি ভাই। ধর্মীয় ভাই। তাদের নির্যাতনে আমাদেরকে তাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের মানবিক ও ঈমানি দায়িত্ব। মানববন্ধনের শেষে বক্তৃতা করেন প্রধান অতিথি শাইখুল হাদীস মাওলানা আজিমুদ্দীন।অবশেষে তিনি দোয়া ও মুনাজাতের মাধ্যমে মানববন্ধন শেষ করেন।

এবিআর

রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রতিবাদে কলরবের বিবেক জাগানিয়া সঙ্গীত

kalarab5আব্দুল্লাহ বিন রফিক: চারদিকে মুসলিমের রক্ত নিয়ে চলছে হোলিখেলা । শুনলে চোখে কান্নায় জল আসে। তিরতির করে আরাকানী প্রাণের শেষ বিন্দু যেনো মিলিয়ে যাবে কোনো দূর অজানায়। এ যেনো মানবতার বুকে বর্বরতার উদোম নৃত্য নেশা। জালিমের এ রক্ত যেনো থামবার নয়।

অত্যাচারের খড়গ ক্রমান্বয়ে আরো ধারালো হয়ে উঠছে। মানবতায় উঠেছে ত্রাহি ত্রাহি গোঙানি। ভাগ্যবঞ্চিত ও বঞ্চনাপিষ্ঠ মিয়ানমারের সেই মজলুম মুসলমানদের করুণ চিত্র ফুটে উঠেছে কলরবের সঙ্গীতে।

সঙ্গীতটির সুর করেছেন আমিনুল ইসলাম মামুন। কণ্ঠ দিয়েছেন ওমর আব্দুল্লাহ, ইকবাল মাহমুদ ও মাহফুজ আলম।

চমৎকার ভিডিওটি দেখুন এবং শেয়ার করুন।

https://youtu.be/Hda7fep4ePs

 

মিয়ানমারের ৯১ নাগরিককে বিজিপির কাছে হস্তান্তর

 mianmarআওয়ার ইসলাম: বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ মিয়ানমারের ৯১ নাগরিককে  দীর্ঘ কারাভোগ শেষে মুক্তি দিয়েছে। মুক্তির পর পরই তাদের মিয়ানমার বিজিপির কাছে হস্তান্তর করা হয়। বুধবার সকাল ১০টায় বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম সীমান্তে বাংলাদেশের ভেতরে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়।

বিজিবির কক্সবাজার সেক্টরের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার কর্নেল আনিসুর রহমান, ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ,  জেলা প্রশাসকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমরুল কায়েস উক্ত বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
কক্সবাজার-৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল ইমরান উল্লাহ সরকার জানান, সকাল ১০টার দিকে বৈঠক শুরু হয়। সাড়ে ১০টার দিকে তাদেরকে বিজিপির কাছে হস্তান্তর করা হয়। বিভিন্ন সময় বঙ্গোপসাগরে নৌ বাহিনীর কোস্টগার্ডের কাছে আটক হয়েছিল। দীর্ঘ কারাভোগ শেষে আজ কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে তাদেরকে বৈঠকের মাধ্যমে হস্তান্তর করা হয়।

 হস্তান্তর হওয়া এসব মিয়নমারের নাগরিক ২০১৫ সালের বঙ্গোপসাগরে নৌ বাহিনীর হাতে আটক হয়েছিল।

এবিআর