শনিবার, ২৬ মে ২০১৮

ক্যান্সার প্রতিরোধ বেলের শরবত

OURISLAM24.COM
মে ১১, ২০১৮
news-image

আওয়ার ইসলাম: প্রচণ্ড গরমের দাবদাহে একটু বেলের শরবতে যেন প্রান জুড়িয়ে যায়। গরমে শরীরকে ঠাণ্ডা রাখতে বেলের শরবতের উপকারিতা নিয়ে নতুন করে আর কিছু বলার নেই।

কিন্তু শুধু পেট ঠাণ্ডা নয়, বেলের আছে আরও নানা রকম গুণ। বেলে আছে এমন কিছু উপাদান যা খুব কম ফলেই পাওয়া যায়। যেমন এতে আছে প্রোটিন, শর্করা, থায়ামিন, ক্যারোটিন, নিয়াসিন ও আরও অনেক পুষ্টিগুন।

১. হজমে সাহায্য করে
গরমকালে প্রায়ই হজমের সমস্যা দেখা যায়। খাবার ঠিক মত হজম হয় না। তার ফলে বদহজম, গ্যাস, অম্বল, পেট ব্যাথা এসব সমস্যা লেগেই থাকে। এসব সমস্যা থেকে মুক্তি পাবার জন্য বেলের শরবত খুবই উপকারি। বেল, খাবার হজম হতে সাহায্য করে। পেট ঠাণ্ডা রাখে, তার ফলে গ্যাস, অম্বল, বমির মত সমস্যা হয় না। হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে।

২. শরীরের এনার্জি বৃদ্ধি করে
এনার্জি বাড়াতে বেল খুবই উপকারি। একটা ১০০ গ্রাম বেলে, ১৪০ গ্রাম ক্যালোরি থাকে। এছাড়াও থাকে আরও নানান পুষ্টিগুণ ও প্রচুর প্রোটিন। যা এনার্জি বাড়াতে সাহায্য করে। পেশিকে মজবুত করে এবং সচল রাখে। গরমে শরীরের ক্লান্তি দূর করতে বিশেষ উপকারি বেলের শরবত।

৩. কিডনি ভালো রাখে
কিডনি ভালো রাখতেও বেল বেশ উপকারি। কিডনির সমস্যার ক্ষেত্রে ডাক্তাররা বেল খেতে বলেন। কারণ বেলে আছে এমন কিছু উপাদান যা কিডনিকে ডিটক্সিফাই করে। সমস্ত রকম অসুখ থেকে কিডনিকে মুক্ত রাখে।

৪. কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে
যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যর সমস্যা আছে, তাদের জন্য পাকা বেলের শরবত খুব উপকারি। বেল হজমে সাহায্য করে কোষ্ঠকাঠিন্যর মত সমস্যাকে দূর করে। যদি রোজ বেলের শরবত খাওয়া যায়, তাহলে দু তিন মাসের মধ্যেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়াও কাঁচা বেল ডায়রিয়া ও আমাশয় রোগের ওষুধ হিসেবে কাজ করে।

৫. ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
বেল স্তন ক্যান্সার রোধে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। কারণ বেলে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্টর গুণ। যা ক্যান্সার প্রতিরোধক। স্তন ক্যান্সারের সমস্যায় আক্রান্ত হবার থেকে বাঁচায়। এছাড়া কোলন ক্যান্সারের ক্ষেত্রেও বেশ উপকারি।

৬. চোখের সমস্যা দূর করে
বেল শরীরের সাথে সাথে চোখের জন্যও বেশ উপকারি। এতে আছে প্রচুর ভিটামিন এ। যা চোখের জন্য খুবই উপকারি একটি উপাদান। এটি চোখের দৃষ্টিশক্তি প্রখর করতে সাহায্য করে। চোখের বিভিন্ন রোগ যেমন গ্লুকমা, জেরসিস এসব অসুখ হবার হাত থেকে চোখকে বাঁচায়।

আরো পড়ুন- হস্তলিখিত বিশ্বের সর্ববৃহৎ পাণ্ডুলিপি তৈরি হচ্ছে মিশরে