বুধবার, ২৩ মে ২০১৮

ইসরায়েলের স্বাধীনতার ৭০ বছর, ছবি কথা বলে

OURISLAM24.COM
এপ্রিল ২০, ২০১৮
news-image

আবদুল্লাহ তামিম: ইসরায়েল নিজেকে একটি ইহুদী গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে দাবী করে। এখানে একটি প্রতিনিধিত্বমূলক সংসদীয় গণতন্ত্র বিদ্যমান। এরককক্ষবিশিষ্ট আইনসভার নাম ক্নে‌সেত। প্রধানমন্ত্রী সরকারপ্রধানের দায়িত্ব পালন করেন।

ইসরায়েলের জন্ম, ইতিহাস ও রাজনীতি মধ্যপ্রাচ্য সংকটের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। স্বাধীনতা ঘোষণার পর থেকেই ইসরায়েল প্রতিবেশী আরব রাষ্ট্রগুলির সাথে বেশ কয়েকবার যুদ্ধে লিপ্ত হয়। দেশটি ১৯৬৭ সাল থেকে ফিলিস্তিনি-অধ্যুষিত পশ্চিম তীর ও গাজা উপত্যকা সামরিকভাবে দখল করে আছে।

বর্তমানে পৃথিবীর ১৬১টি রাষ্ট্র ইসরায়েলকে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দিলেও ৩১টি রাষ্ট্র (মূলত মুসলমান অধ্যুষিত) এখনও ইসরায়েলের সার্বভৌমত্ব মেনে নেয়নি  হিব্রু ক্যালেন্ডার অনুযায়ী সত্তর বছর আগে ঠিক এ সময়েই ইসরায়েল রাষ্ট্র হিসেবে তাদের স্বাধীনতা ঘোষণা করেছিল৷

ইউরোপে গণহত্যার শিকারের পর ইহুদিদের জন্য সেই রাষ্ট্র গঠন ঘুরে দাঁড়ানোর একটি পদক্ষেপ৷ছবি কথা বলে ৭০ বছরের ইতিহাস কী বলে।

default

বহুল প্রতীক্ষিত জয়

১৯৪৮ সালের মে মাসের এই ছবিতে ডেভিড বেন-গুরিয়ানকে ইসরায়েলের স্বাধীনতা ঘোষণা করতে দেখা যাচ্ছে৷ এসময় তিনি বলছেন, এ পুণ্যভূমির প্রতি মানুষের সবসময় আকুতি ছিল এবং কখনোই তাঁরা রাজনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যে এই ভূমিতে ফিরে আসার আশা ছাড়েননি৷ এটিই বিশ্বের প্রথম আন্তর্জাতিক ইহুদি রাষ্ট্রের সূচনালগ্ন৷

default

অন্ধকারতম সময়

বাইবেল অনুযায়ী, ইহুদিদের বিতর্কিত দাবি হচ্ছে, ‘ঈশ্বর তাদের একটি পবিত্রভূমি’ বরাদ্দ করেছেন৷ ইউরোপজুড়ে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ৬০ লাখ ইহুদি গণহত্যার শিকার হলে নিজস্ব ভূমির যৌক্তিকতা শক্ত হয় ইহুদিদের৷ যাঁরা বেঁচে ছিলেন তাঁদেরকে নিয়ে যাওয়া হয় কনসেনট্রেশন ক্যাম্পে৷ চালানো হয় নিপীড়ণ আর জোর করে কাজ করানো হয়৷ উপরের ছবিটি আউসভিৎস ক্যাম্পে থাকা জীবিতদের৷

Women and children walk down a dusty road as they leave Palestine (picture-alliance/CPA Media)

‘নাকবা’ বা আকস্মিক বিপর্যয়

ফিলিস্তিন রাষ্ট্রকামীরা ইহুদিদের ইউরোপ থেকে আগমনকে নাকবা বা বিপর্যয় বলে চিহ্নিত করে৷ ইহুদিরা যখন প্যালেস্টাইনে বসতির জন্য আসে, তখন সেখানকার জনসংখ্যা ছিল ৭ লাখ৷ বিপুল সংখ্যক ইহুদির আগমনে এক ধরনের বিপর্যয় তৈরি হয়৷

Children use tools to work on wood crafts outside a house (G. Pickow/Three Lions/Hulton Archive/Getty Images)

কিব্বুজ

শুরুতে বসতি স্থাপনের পর ইসরায়েলিরা ফিলিস্তিনে যৌথ খামার বা কমিউনিটি গড়ে বসবাস শুরু করে৷ এসব কমিউনিটিকে তাঁরা কিব্বুজ বলতেন৷ কিব্বুজগুলোর অনেকগুলোই সেকুল্যার বা সোশ্যালিস্ট মনোভাবাপন্ন ইহুদিদের দ্বারা পরিচালিত হতো, যাতে সমাজ সম্পর্কে ইহুদি জনগোষ্ঠীর দৃষ্টিভঙ্গিতে স্বচ্ছতা গড়ে ওঠে৷

default

যুদ্ধ

১৯৬৭ সালের জুনে প্রতিবেশী আরব দেশগুলোর সাথে ছয় দিনের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে ইসরায়েল৷ যুদ্ধে আকস্মিক আক্রমণ চালিয়ে তারা মিশর, জর্ডান এবং সিরিয়ার বাহিনীকে পরাজিত করে সিনাই উপত্যকা, গাজা উপত্যকা, পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুসালেম এবং গোলান হাইটস নিজেদের কব্জায় নিয়ে নেয়৷ এই জয় ইহুদি বসতি গড়ায় সহায়তা করে, আর মধ্যপ্রাচ্যে ছড়ায় উৎকণ্ঠা৷

Apartment houses stand in desert land in an Israeli settlement while Palestinian houses stand atop a hill in the background (picture-alliance/newscom/D. Hill)

বিতর্কিত বসতি

ভূমি মালিকানা নিয়ে ফিলিস্তিন-ইসরায়েলের বিরোধপূর্ণ এলাকাগুলোতে আন্তর্জাতিক সব চাপ অগ্রাহ্য করে ইহুদি বসতি স্থাপন করা হতে থাকে৷ বসতি স্থাপনের সময় জায়গাটিকে হয় তারা নিজেদের বলে দাবি করেছে, নতুবা বলেছে নিরাপত্তার খাতিরে বসতি স্থাপন করা হচ্ছে৷

default

ইন্তিফাদা

নিজভূমিতে ইসরায়েলি আগ্রাসনের প্রতিবাদে ১৯৮৭ সালে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে ব্যাপক বিক্ষোভ শুরু করে ফিলিস্তিনিরা৷ এটি প্রথম ইন্তিফাদা হিসেবে পরিচিত৷ ১৯৮৭ সালে থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত ওই ইন্তিফাদা চলে৷ এরপর ইসরায়েল সরকার এবং ফিলিস্তিনের প্রতিনিধি প্যালেস্টাইন লিবারেশন অর্গানাইজেশন (পিএলও)-র মধ্যে অসলো চুক্তি স্বাক্ষর হয়৷

default

অবশেষে শান্তি!

সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রপতি বিল ক্লিনটনের সময় আরব ও ইসরায়েল শান্তি চুক্তি হয়৷ তাতে দুই দেশ একই অপরকে স্বীকৃতি দেয়৷ ইসরায়েলের পক্ষে আইজাক রবিন এবং পিএলও-র পক্ষে ইয়াসির আরাফাত এতে স্বাক্ষর করেন৷ এই চুক্তির কারণে দুই বছর পর রবিন নিহত হন৷

Prime Minister Peres sits next to an empty chair (Getty Images/AFP/J. Delay)

ইসরায়েলে অন্তর্দ্বন্দ্ব

উগ্রপন্থিরা প্রধানমন্ত্রী রবিনকে হত্যা করে ১৯৯৫ সালে ৪ নভেম্বরে৷ সেসময় তিনি রাজধানী তেল আবিবের একটি শান্তি র‌্যালি থেকে বের হচ্ছিলেন৷ রবিনের হত্যার মধ্য দিয়ে ইসরায়েলের ভেতরে উদারপন্থি, মধ্যপন্থি, চরমপন্থি ও ধার্মিক গোষ্ঠীর বিরোধ সামনে চলে আসে৷ রবিনের স্থলাভিষিক্ত হন সিমন পেরেস৷

Johannes Rau speaks in front of a microphone (picture-alliance/dpa)

যা বলা হয়নি

২০০০ সালে জার্মান প্রেসিডেন্ট ইয়োহানেস রাউ ইসরায়েলি আইনসভার কাছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ইহুদি গণহত্যার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন৷ যা দুই দেশের শিথিল সম্পর্ককে নতুন মাত্রা দেয়

A concrete wall under construction winds its way along a base in the desert while an Israeli flag waves in front (picture-alliance/dpa/dpaweb/S. Nackstrand)

ইসরায়েলের দেয়াল

২০০২ সালে ফিলিস্তিনিদের দ্বিতীয় গণবিক্ষোভ বা ইন্তিফাদার সময়ই ইসরায়েল পশ্চিম তীরে ইহুদি বসতি ও ফিলিস্তিনি বসতির মধ্যে ১০৭ কিলোমিটার লম্বা কাঁটাতার ও কংক্রিটের দেয়াল নির্মাণ করে৷ নিরাপত্তা ফাঁড়িও বসায় তারা৷ এটি সাময়িকভাবে সংঘাত থামালেও ফিলিস্তিন-ইসরায়েল সম্পর্কে আরো দীর্ঘমেয়াদী ক্ষত তৈরি করে৷ বর্তমানে ইসরালের নিরাপত্তা বেষ্টনির দৈর্ঘ্য ৭০০ কিলোমিটারে ঠেকেছে৷

Heiko Maas lays a wreath down in memory of Holocaust victims (picture-alliance/dpa/I. Yefimovich)

মৃতদের প্রতি শ্রদ্ধা

জার্মানির বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাইকো মাস এ বছরের মার্চে ইসরায়েল সফর করেন৷ জেরুসালেমে তিনি একটি গণহত্যা জাদুঘর পরিদর্শন করেন এবং গণহত্যার শিকার ইহুদিদের প্রতি সম্মান জানান৷ জার্মান-ইহুদি সম্পর্ক এর মধ্য দিয়ে অতীতের যে-কোনো সময়ের চেয়ে বেশি হৃদ্যতাপূর্ণ হয়৷

আরো পড়ুন- ইসরায়েলকে কঠোর হুশিয়ারি সিরিয়ার