সোমবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

ভারত হবে বৃহৎ মুসলিম জনসংখ্যার দেশ

OURISLAM24.COM
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮
news-image

আবদুল্লাহ তামিম:  আগামী ২০৫০ সালের মধ্যেই বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মুসলিমদের বাস হবে ভারতে। যুক্তরাষ্ট্রের পিউ রিসার্চ সেন্টারের একটি জরিপে উঠে এসেছে এই তথ্য। পাশাপাশি বিশ্বের দ্রুততম বর্ধনশীল ধর্মীয় গোষ্ঠী হিসাবেও উঠে আসছে মুসলিমরা।

জরিপে দেখা গেছে, ২০১০ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিশ্বে মুসলিমের সংখ্যা ছিলো ১.৬ মিলিয়ন-যা বিশ্বের মোট জনসংখ্যার ২৩ শতাংশ। বর্তমানে জনসংখ্যার বিচারে খ্রিষ্টানদের ঠিক পরেই দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় সম্প্রদায় হলো ইসলাম। কিন্তু দ্রুত বর্ধনশীল ধর্ম হিসেবে ইসলাম অন্যদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে। মুসলিমদের বৃদ্ধির হার যদি এইভাবে হতে থাকে তবে এই শতকের শেষে খ্রিষ্টান জনসংখ্যার চেয়ে মুসলিমদের জনসংখ্যা অনেকটাই বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

সারা বিশ্বের মধ্যে একটা বিশাল সংখ্যক মুসলিম বাস করেন ইন্দোনেশিয়া, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ইরান এবং তুর্কিসহ সমগ্র এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে। এই মূহুর্তে বিশ্বে সর্ববৃহৎ মুসলিম জনসংখ্যার দেশ হল ইন্দোনেশিয়া। কিন্তু পিউ রিসার্চ সেন্টারের পূর্বাভাস হল ২০৫০ সালের মধ্যে ইন্দোনেশিয়াকে ছাড়িয়ে বিশ্বের সর্ববৃহৎ মুসলিম জনসংখ্যার (৩০০ মিলিয়নের বেশি) দেশ হবে ভারত।

ইউরোপেও মুসলিমদের জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ২০৫০ সালের মধ্যে ইউরোপেও মুসলিম জনসংখ্যার হার ১০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে।

সংস্থাটির তথ্যে প্রকাশ, ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রে সব বয়সের মুসলিমের সংখ্যা ৩.৩ মিলিয়ন, দেশটির মোট জনসংখ্যার ১ শতাংশ। ২০৫০ সালের মধ্যে এই দেশটিতেও মুসলিমের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে ২.১ শতাংশ।

দ্রুত হারে মুসলিমদের জনসংখ্যা বৃদ্ধি একটি অন্যতম কারণ হল অন্য ধর্মীয় সম্প্রদায়ের চেয়ে মুসলিমদের পরিবারে সদস্যসংখ্যা অনেক বেশি। বিশ্ব জুড়ে গড়ে প্রতিটি বিবাহিত মুসলিম নারীদের সন্তান রয়েছে ৩.১ টি, যেখানে অন্য সম্প্রদায়ের মধ্যে এই সংখ্যাটা ২.৩ টি।

তাছাড়া অন্য ধর্মীয় সম্প্রদায়ের চেয়ে মুসলিমদের মধ্যে অল্পবয়স্কদের সংখ্যাও অনেক বেশি। ২০১০ সালে মুসলিমদের মধ্যমা (মাঝারি) গড় বয়স যেখানে ২৩ বছর ছিল যেটা অ-মুসলিমদের মধ্যমা বয়সের চেয়ে সাত বছর কম। ফলে গোটা বিশ্বেই একটা বিশাল সংখ্যক অল্পবয়সী মুসলিম আছে যাদের বিয়ে এবং পরবর্তীতে সন্তানের জন্ম দিলে সেই সংখ্যাটা আরও বাড়বে।

 

সূত্র: সিএনএন/এটি