বৃহস্পতিবার, ২৪ মে ২০১৮

এরাই হবে শিল্পসাহিত্যে আগামীর জমিদার

OURISLAM24.COM
ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮
news-image

আহমাদ হাবীব
তরুণ লেখক

ভাষা নিয়ে, লেখালেখি নিয়ে মাদরাসার ছাত্রদের কাজ এবং উদ্যোগগুলো সত্যিই প্রশংসারর দাবিদার। গড়ে প্রায় ৮০ ভাগ মাদরাসা থেকে নিয়মিত মাসিক, দ্বিমাসিক, ত্রৈমাসিক এবং ষান্মাসিক পত্রিকা বের হয়। বছরে দু’বার প্রকাশিত হয় হাতে লেখা দেয়াল পত্রিকা।

প্রতিবছর বইমেলাও মাতিয়ে রাখছে এসব তরুণেরা। সফেদ পাঞ্জাবি-টুপির মিছিল দীর্ঘ থেকে দীর্ঘ হচ্ছে দিনদিন। শুভ্রতার আমেজ ছড়িয়ে পড়ছে মেলাজুরে। মেলা থেকে সংগৃহীত বইয়ের ভারে নুইয়ে পড়া ছেলদের আশ যেন মিটে না। ঘুরতে থাকে স্টল থেকে স্টলে।

হিসেব কষতে থাকে আর কোন বই কেনা দরকার। আবার সেসব বই পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় কী চমৎকার রিভিও লেখে একেকজনে। উদ্বুদ্ধ করে বহুজনকে।

মাদরাসার এসব তরুণ যে শুধু বই পড়ে, তা-ই নয়! বই লিখে মেলায় হইচইও ফেলে দেয়। কয়েকবছর যাবৎ যে হারে তাদের বই মেলায় আসছে তা রীতিমত অবাক কাণ্ড!

সাহিত্যের এমন কোন শাখা নাই, যেখানে এদের পদচারণা নাই। গল্প, ছড়া, কবিতা, ফিচার, ভ্রমণ, উপন্যাস, ইতিহাস-ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, অনুবাদ, থ্রিলার; মোট কথা আপনি যা চাইবেন সে বিষয়ে তরুণদের লেখা অসংখ্য বই পাবেন।

শুধু তাই না, খোঁজ নিয়ে দেখুন- এদের বইগুলোই বিক্রি হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। রকমারিসহ অনলাইন বুকশপগুলোতে দেখুন- এদের বই বেস্ট সেলার।

আমার এমনও তরুণের কথা জানা আছে, একমেলায়ই যাদের বই দুইতিনবার ছাপা হয়েছে, ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে। কারণ লেখালেখি, ভাষা ও সাহিত্যচর্চায় এদের যে আত্নত্যাগ, কঠোর পরিশ্রম এবং পাঠের গভীরতা; তা বিস্ময় করার মত। এদের ভাষাশৈলি ও বাক্যের কাঠামো বেশ সুন্দর ও মজবুত। আর বর্ণনাভঙ্গি? আপনি নিশ্চিত থাকুন আপনাকে টানবে।

আমি হলফ করে বলতে পারি- ভাষাচর্চা ও লেখালেখিতে মাদরাসার ছাত্রদের উপস্থিতি এবং কর্মকৌশল যেভাবে বাড়ছে, সেদিন বেশি দূরে নয়, যেদিন এদেশের ভাষা ও শিল্প-সাহিত্যের নেতৃত্ব এদের হাতেই চলে আসবে, এবং এরাই হবে তার জমিদার। এরাই ঘটাবে নতুন বিপ্লব ।

বেফাকের কাউন্সিল: প্রত্যাশা পূরণ হলো কতটুকু?