বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারি ২০১৮

ads

মুন্সীগঞ্জের ইজতেমায় ওয়াসিফুল ইসলামসহ ৬ জনকে না যেতে আলেমদের চিঠি

OURISLAM24.COM
নভেম্বর ২৮, ২০১৭
news-image

হামিম আরিফ
বিশেষ প্রতিবেদক

মুন্সীগঞ্জে তাবলীগ জামাতের জেলাওয়ারি ইজতেমায় কাকরাইল মারকাজের মুরব্বি ও শূরার সদস্য ওয়াসিফুল ইসলামসহ ৬ জনকে না যাওয়ার জন্য কাকরাইল মারকাজের শূরার কাছে চিঠি পাঠিয়েছেন মুন্সিগঞ্জের উলামায়ে কেরাম।

সম্প্রতি এ সংক্রান্ত ওলামায়ে কেরামের স্বাক্ষরসহ একটি চিঠি আওয়ার ইসলামের হাতে এসেছে। যেখানে মুন্সিগঞ্জের প্রবীন ও নেতৃস্থানীয় আলেমদের স্বাক্ষর রয়েছে। তারা সবাই তাবলীগের শীর্ষ পর্যায়ের ৬ ব্যক্তিকে মুন্সিগঞ্জের ইজতেমায় না যাওয়ার ব্যাপারে মত দিয়েছেন।

তাবলীগের মারকাজের শূরার সদস্য ওয়াসিফুল ইসলাম ছাড়া বাকি পাঁচ ব্যক্তি হলেন, নাসিম উদ্দীন, প্রফেসর ইউনুস, মাওলানা মুনির বিন ইউসুফ, মাওলানা আশরাফ আলী ও মাওলানা আবদুল্লাহ।

চিঠিতে বলা হয়, উল্লেখিত ৬ ব্যক্তি যেন মুন্সীগঞ্জের ইজতেমায় অংশগ্রহণ না করেন। এদের ছাড়া কাকরাইলের মুরব্বিদের যে কেউ ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন এতে কোনো আপত্তি নেই।

উল্লেখ্য, আগামী ৭, ৮ ও ৯ ডিসেম্বর মুন্সিগঞ্জে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জেলাওয়ারি ইজতেমা। টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমায় লোক সংকুলান না হওয়ার কারণে  ২০১৬ সাল থেকে জেলাওয়ারি ইজতেমার প্রচলন করেন তাবলীগ জাতামের মুরব্বিরা।

গতবারের মতো চলতি বছরও দেশের বিভিন্ন জেলায় পর্যায়ক্রমে জেলাওয়ারি ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

চিঠির বিষয়টি নিয়ে কাকরাইলের তাবলীগের মারকাজ মুরব্বি মাওলানা যোবায়ের আমদের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি আওয়ার ইসলামকে জানান, আমরা মুন্সিগঞ্জের উলামায়ে কেরামের চিঠি পেয়েছি। তবে মারকাজের উল্লেখিত ৬ জনসহ সব মুরব্বি যেন মুন্সীগঞ্জের ইজতেমায় যান এরকম একটি চিঠিও মুন্সিগঞ্জ থেকে আমাদের কাছে এসেছে।

চিঠির বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে বসবো। এখনো এ বিষয়ে কোনো ফায়সালা হয়নি।

চিঠিতে স্বাক্ষরকারী আলেমগণ হলেন, ১. মাওলানা আবদুল হামিদ মধুপুরের পীর, মুহতামিম জামিয়া ইসলামিয়া হালিমিয়া মধুপুর। ২.  মাওলানা আবদুল্লাহ, মুহতামিম জামিয়া ইসলামিয়া মোস্তফাগঞ্জ মুন্সিগঞ্জ। ৩. মাওলানা সাইফুল্লাহ, নায়েবে মুহতামিম জামিয়া ইসলামিয়া মোস্তফাগঞ্জ।

৪. মাওলানা আবদুর রউফ, শাইখুল হাদিস জামিয়া ইসলামিয়া  মোস্তফাগঞ্জ। ৫. মাওলানা মুস্তাফিজুর রহমান, মুহতামিম মাদরাসাতুল বানাত সোনারং মুন্সীগঞ্জ। ৬. মুফতি গিয়াসুদ্দীন, মুহাদ্দিস মাদানীনগর মাদরাসা সিরাজদিখান। ৭. মাওলানা নাশির আহমদ, মুহতামিম জামিয়া এমদাদিয়া সৈয়দপুর মুন্সীগঞ্জ।

৮. মুফতি রুহুল আমিন, মুহতামিম দক্ষিণ ইসলামপুর মুন্সীগঞ্জ। ৯. মাওলানা হাসান ফারুক, মুহতামিম রওজাতুল উলুম গজারিয়া মুন্সীগঞ্জ। ১০. মাওলানা আবু বকর।

১১. মাওলানা ইলিয়াস, শাইখুল হাদিস জামিয়া ইসলামিয়া। ১২. মাওলানা যাইনুল আবেদীন, মুহতামিম নূরপুর। ১৩. মুফতি হারুনুর রশিদ, মুহতামিম দারুল উলুম মাদরাসা টঙ্গিবাড়ী মুন্সীগঞ্জ। ১৪. মুহাম্মদ ইউনুস, মুহতামিম মাদরাসা কাসেমুল উলুম রাহমানিয়া শ্রীনগর মুন্সীগঞ্জ।

১৫. মুফতি কামরুজ্জামান, শাইখুল হাদিস মধুপুরমাদরাসা মুন্সীগঞ্জ। ১৬. মাওলানা আবদুল হান্নান, আড়িয়াল টঙ্গীবাড়ী মাদরাসা। ১৭.  দিলওয়ার হোসাইন ১৮. আহসানুল্লাহ, টঙ্গীবাড়ী ১৯. মাওলানা শাহাদাত খান, মুহাতিমম নয়ানগর কাসেমুল উলুম মাদরাসা।

২০. মাওলানা আবুল খায়ের, মুহতামিম লস্করপুর আজিজিয়া দারুল উলুম মাদরাসা। ২১. মাওলানা মহিউদ্দীন, জান্নাতুল উলুম মাদরাসা সিরাজদিখান। ২২. মুফতি আলী হায়দার, মুহতামিম কোটখালী ইসলামিয়া মাদরাসা মুন্সীগঞ্জ। ২৩. মাওলানা সিরাজুদ্দীন, শাইখুল হাদিস জামিয়া মাদানিয়া শ্রীগনগর মুন্সীগঞ্জ।

২৪. মুহাম্মদ আবু ইউসুফ, মুহতামিম রাড়িখাল মাদরাসা। ২৫. মুহাম্মদ জাফর উল্লাহ, মুহতামিম দারুল উলুম ইসলামিয়া মাদরাসা। ২৬. মাওলানা ইউনুস কাসেমী, মুহতামিম জামিয়া ইসলামিয়া শ্রীনগর। ২৭. মুহাম্মদ সাইদুর রহমান, নায়েবে মুহতামিম জামিয়া আশরাফিয়া শ্রীনগর মুন্সীগঞ্জ।

ইসরাইলেও হয় তাবলিগের মেহনত, আছে ২৪ মারকাজ

তাবলীগের আলেম উপদেষ্টা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত