বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭

ads

চিকনগুনিয়া প্রতিরোধের দাবিতে মেয়রের কাছে ইসলামী আন্দোলনের স্মারকলিপি পেশ

OURISLAM24.COM
জুলাই ১৯, ২০১৭
news-image

আওয়ার ইসলাম : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমদ বলেছেন, ঢাকা সিটির মেয়রদ্বয় নগরবাসীর মৌলিক চাহিদা পুরণে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। নগরের সর্বত্র ভয়াবহ জলাবদ্ধতার ফলে নাগরিক জীবন চরম দুর্বিষহ করে তুলেছে। নগরীতে চিকনগুনিয়া মহামারী আকার ধারণ করেছে।

তিনি বলেন, নগর এখন ময়লার ভাগারে পরিণত হয়েছে। স্বাস্থ্য সেবা দিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ব্যর্থ হয়েছে। ঢাকা সিটির করপোরেশনের মেয়রদ্বয় নগরবাসীর সাথে কৃত ওয়াদা বাস্তবায়নে চরমভাবে ব্যর্থ হয়ে মেয়রপদে থাকার অধিকার হারিয়েছেন।

মিছিলের অনুমতি না দেয়াই প্রমাণ করে সরকার ভারতের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে: অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমদ

আজ সকালে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ-এর উদ্যোগে চিকনগুনিয়ার প্রকোপ থেকে নগরবাসীকে রক্ষায় ব্যর্থতার প্রতিবাদে নগর ভবন অভিমুখে বিক্ষোভ ও স্মারকলিপি পেশ পূর্ব জমায়েতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সংগঠনের নগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জমায়েতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নগর সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, জয়েন্ট সেক্রেটারি আলহাজ্ব আব্দুল আউয়াল, প্রচার সম্পাদক এইচ এম সাইফুল ইসলাম, যুবনেতা মাওলানা কাওছার বাঙ্গালী, ছাত্রনেতা জোবায়েরুল ইসলাম প্রমুখ। এছাড়াও উপস্থিথ ছিলেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা ফখরুল ইসলাম।

জমায়েতশেষে একটি মিছিল বের হয়ে নগর ভবন অভিমুখে রওয়ানা দিলে পুলিশের মিছিলে বাধা দেয়। এসময় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

পরে ৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল নগরভবনে গিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন। প্রতিনিধি দলে ছিলেন নগর সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আলতাফ হোসেন, মাওলানা ফখরুল ইসলাম, মাওলানা কাওছার বাঙ্গালী, আল-আমিন সিদ্দিকী ও ডা. এস এম আব্দুল আজিজ। মেয়রের পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সেক্রেটারী মুহাম্মদ শাহাবুদ্দিন খান।

সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা ইমতিয়াজ আলম বলেন, রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে মশার আক্রমণে চিকনগুনিয়া নামক ভাইরাসে মানুষ আক্রান্ত হয়ে বহু কষ্টে দিনানিপাত করছে। অথচ মশা মারার ওষুধ না ছিটিয়ে বরাদ্ধকৃত অর্থ ভাগবাটোয়ারায় ব্যস্ত কর্মকর্তারা। নাগরিক সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত নগরবাসীর ধৈর্যচ্যূত হলে মেয়রদ্বয় স্বপদে বহাল থাকতে পারবেন না।

তিনি নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনসহ নাগরিক সুযোগ-সৃবিধা বৃদ্ধির জন্য মেয়রদ্বয়ের প্রতি আহবান জানান।

স্মারকলিপিতে ১০ দফা দাবি জানানো হয়। যা নিম্নরূপ : ১. সকল জলাবদ্ধতা দুর করতে হবে ২. মশার ঔষধ প্রতিদিন অলিগলিতে ছিটানোর ব্যবস্থা করতে হবে,৩. হাসপাতাল ছাড়াও আপাতকালীন সময়ে স্বাস্থ্য ক্যাম্পের ব্যবস্থা করতে হবে, ৪.অসহায় ও দরিদ্র পরিবারকে আর্থিক সহযোগিতার ব্যবস্থা করতে হবে, ৫. স্বাস্থ্য সচেতনতার ব্যাপারে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণ করা ৬. মশা নিধনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে, ৭. দূর্গন্ধযুক্ত ময়লার ভাগাড় থেকে রাজধানীবাসীকে মুক্তি দিতে হবে, ৮. সর্বত্র রোড লাইটের ব্যবস্থা করতে হবে, ৯. পরিবেশকে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে, ১০. অপরিকল্পিত রাস্তা খোঁড়া খুড়ি করেও জন জীবন দুর্বিষহ করা যাবে না।