রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭

ভয়াবহ ডিসকো ও নাইনস্টার গ্রুপের দ্বন্দ্বেই খুন কিশোর আদনান

OURISLAM24.COM
জানুয়ারি ৯, ২০১৭
news-image

adnan_uttaraআওয়ার ইসলাম: ঢাকার উত্তরায় ৮ম শ্রেণির স্কুলছাত্র আদনান কবিরকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ড ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। অনেকের ধারণা প্রেমঘটিত কারণে তাকে হত্যা করা হয়েছে। তবে পুলিশ বলছে এ হত‌্যাকাণ্ড ওই এলাকার দুই গ্রুপের পূর্ব শত্রুতার জের ধরে ঘটেছে।

পুলিশ বলছে, ওই এলাকার ডিসকো গ্রুপ ও নাইনস্টার গ্রুপের দ্বন্দ্বের করণেই খুন হন আদনান। পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত বছর ‘নাইনস্টার গ্রুপের’ নেতা ‘তালাচাবি রাজু’কে ছুরিকাহত করেছিল ‘ডিসকো গ্রুপের’ সদস্যরা।

জানা যায়, উত্তরায় কিশোরদের এমন পাঁচটি গ্রুপ রয়েছে। যাদের বেশিরভাগই নামকরা স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থী এবং উচ্চবিত্ত পরিবারের সন্তান। তাদের প্রায় সবার বয়সই ১৮ বছরের নিচে। এই পাঁচ ‘গ্যাংয়ের’ মধ্যে মারামারি, অস্ত্র প্রদর্শন, মাদক নেয়া, নিজেদের ভাগাভাগি করে নেওয়া এলাকায় ‘শো-ডাউন’ লেগেই থাকে। সবাই সব জানে, কিন্তু এখন কেউ মুখ খুলছে না। এরা এলাকার কিশোরীদের জন্য রীতিমতো ত্রাস হয়ে উঠেছে।

উত্তরায় সক্রিয় থাকা গ্রুপগুলোর মধ্যে রয়েছে বিগবস, ডিসকো বয়েজ উত্তরা, পাওয়ার বয়েস উত্তরা, নাইনএমএম বয়েজ উত্তরা ও নাইন স্টার (৯*)। এর মধ্যে আদনানের যোগাযোগ ছিল নাইন স্টারের সঙ্গে। তাদের দাবি, আদনানকে হত্যা করেছে ডিসকো গ্রুপের সদস্যরা।

এ ঘটনায় ডিসকো গ্রুপের কয়েকজন পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে ইতোমধ্যে জেলও খেটেছে। তারপর থেকে তাদের দ্বন্দ্ব চলছিল বলে পুলিশ জানতে পেরেছে। আদনান ডিসকো গ্রুপের সদস্যদের সঙ্গে চলাফেরা করত। দ্বন্দ্বের কারণেই হয়ত তাকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা পুলিশের। আদনানের বাবা মো. কবির হোসেন উত্তরা পশ্চিম থানায় নয়জনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।

আদনানের বাবা কবির হোসেন মিডিয়াকে বলেন, আমার নিরপরাধ মাছুম বাচ্চাটাকে ওরা মেরে ফেলল। আমার ছেলে কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিল না। তিনি জানান, শুক্রবার বিকেলে ব্যাডমিন্টন খেলতে বাসা থেকে বের হয়। সন্ধ্যার পর তিনি শুনতে পান আদনানকে কে বা কারা কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে। দ্রুত হাসপাতালে গিয়ে দেখেন তার ছেলের নিথর দেহ পড়ে আছে। তিনি এর বিচার চান।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই শাহিন মিয়া বলেন, নিহত আদনানের বাবার মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দু’জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একজনের নাম নাফিজ মো. ডন (১৯) ও আরেকজন সাদাফ (১৬)। দু’জনকে গ্রেফতার করে একদিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। মামলাটির অধিকতর তদন্ত চলছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে। তাদেরও যথাসময়ে গ্রেফতার করা হবে বলেও জানান তিনি।

পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলি হোসেন বলেন, আমরা জানতে পেরেছি কিছু উশৃঙ্খল ছেলে আদনানকে হত্যা করেছে। তাদের দুটি গ্রুপ এই এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করছে। একটি ডিসকো গ্রুপ ও অপরটি নাইনস্টার গ্রুপ বলে জানতে পেরেছি। তবে আসামিরা যে গ্রুপেরই হউক না কেন তাদেরকে আইনের আওতায় এনে এই হত্যার বিচার করা হবে। জড়িত কেউ রেহাই পাবে না।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় একদল তরুণ মাইলস্টোন কলেজের সাবেক ছাত্র আদনান কবিরকে উত্তরার ১৩নং সেক্টরের ১৭ নম্বর রোডে প্রকাশ্যে কুপিয়ে হত্যা করে। তার বাবা বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় সেদিনই ৯ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন নাফিজ মো. আলম ওরফে ডন (১৯), নাঈমুর রহমান অনিক (১৯), সাদাফ জাকির (১৬), রায়হান আহমেদ সেতু (১৯), রবিউল ইসলাম (১৮), মো.আখতারুজ্জামান ছোটন (১৯), আহমেদ জিয়ান (১৯), খন্দকার শুভ (১৮) ও নাজমুস সাকিব (২২)।

আরআর